Home » আদালত ও অাইন » মঠবাড়িয়ায় প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে অর্থ আত্মসাতের মামলা

মঠবাড়িয়ায় প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে অর্থ আত্মসাতের মামলা

 

মজিবর রহমান, মঠবাড়িয়া (পিরোজপুর) প্রতিনিধি //     

পিরোজপুরের মঠবাড়িয়া উপজেলার পৌর শহরের   ঐতিহ্যবাহী কে.এম লতিফ ইনস্টিটিউশনের প্রধান শিক্ষক মো. মোস্তাফিজুর রহমান এর বিরুদ্ধে বিদ্যালয়ের ২ লক্ষ ৬০ হাজার টাকা আত্মসাতের অভিযোগে মঠবাড়িয়া জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট কোর্টে মামলা  হয়েছে। উপজেলার উত্তর মিঠাখালী গ্রামের আবুল কালাম নামে এক দাতা সদস্য গত মঙ্গলবার(১০ মার্চ) এ মামলাটি করেন। বিজ্ঞ ম্যাজিস্ট্রেট মোহাম্মদ আল ফয়সাল শুনানী শেষে মঠবাড়িয়া উপজেলা চেয়ারম্যান রিয়াজ উদ্দিন আহম্মেদকে অভিযোগ তদন্ত করে প্রতিবেদন দাখিলের জন্য নির্দেশ দেন ।

মামলা সূত্রে জানাগেছে, মঠবাড়িয়া কে এম লতিফ ইনস্টিউশনে প্রতি দুই বছর পর  নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। নির্বাচনে দাতা সদস্য ভোটার হিসেবে জন প্রতি ২০ হাজার টাকা ব্যাংক রিসিভের মাধ্যমে নিয়ম অনুযায়ী জমা দেওয়ার বিধান রয়েছে । সে অনুযায়ীদাতা সদস্য ভোটার হতে ১৩জন আবেদনকারি ৬ মাস পূর্বে গত ৭ অক্টোবর ২০১৯ সালে মঠবাড়িয়া ইসলামী ব্যাংকের সঞ্চয়ী হিসাব নম্বর-৩১৬৪ নম্বরে জনপ্রতি ২০ হাজার টাকা করে মোট ২ লাখ ৬০ হাজার টাকা জমা দিয়ে রসিদ গ্রহণ করেন। কিন্তু অভিযুক্ত প্রধান শিক্ষক ব্যাংক হতে সমুদয় অর্থ তুলে নিয়ে স্কুল ফান্ডে জমা না দিয়ে আত্মসাত করেন। এতে স্কুলের নির্বাচনে প্রণয়নকৃত ভোটার তালিকায় ভূক্তভোগি ১৩জন দাতা সদস্য অন্তর্ভূক্ত হতে ব্যর্থ হন। গত ২৬ জানুয়ারি ২০২০ তারিখ ১৪৩ জানের দাতা সদস্যের তালিকা প্রকাশ করলে সেখানে মামলার বাদিসহ ১২জনের নাম ভোটার তালিকায় অন্তর্ভূক্ত করা হয়নি।

মামলার বাদি মো. আবুল কালাম অভিযোগ করেন, নির্বাচনে দাতা সদস্য ভোটার হতে নিয়ম অনুযায়ী নির্ধারিত ব্যাংক হিসেবে টাকা জমা দেওয়ার বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক সমুদয় অর্থ তুলে নেন। এর মধ্যে ১৩জনের টাকা সে স্কুল তহবিলে জমা না করে তসরুপ করেন। পরে ভূক্তভোগিরা প্রধান শিক্ষকের কাছে প্রতিকার চাইলে তিনি টাকা কথা অস্বীকার করেন। তিনি আরও বলেন বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে সীমাহীন দুর্নীতি, ছাএ- শিক্ষকের সাথে অসৌজন্যমূলক আচরণ, শিক্ষকদের সাথে সমন্বয়হীনতাসহ নানা অভিযোগে তার অপসারণের দাবীতে ছাএ- অভিভাবক এর ব্যানারে  কয়েক দফা বিক্ষোভ সমাবেশ হয়েছে ।ইতিপূর্বে বিদ্যালয়ের এক ছাএকে মারধর এর ঘটনায় তার বিরুদ্ধে তদন্ত কমিটি গঠিত হলেও তদন্ত রিপোর্ট আলোর মুখ দেখেনি। প্রধান শিক্ষক একজন দূর্নীতিবাজ। সে বিদ্যালয়ের অাত্মসাতকৃত অবৈধ টাকা দিয়ে খুলনা সোনাডাঙ্গায় বিলাসবহুল বাড়ী নির্মান করছেন।

এ বিষয়ে প্রধান শিক্ষক মো. মোস্তাফিজুর রহমান এর সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, বিদ্যালয়ের ভাবমূর্তি ক্ষুন্ন করার জন্য দীর্ঘদিন ধরে একটি মহল ষড়যন্ত্রে লিপ্ত ছিল। এর ধারাবাহিকতায় অাদালতে এই মিথ্যা মামলা। বিদ্যালয়ের নামে ব্যাংকে যে হিসাব খোলা হয়েছে সেটি যৌথ হিসাব।কাজেই অর্থ আত্মসাতের কোন সুযোগ নেই।

প্রসংগত , গত ২ মার্চ ২০ ঘোষিত তপশিল অনুযায়ী মঠবাড়িয়ার লতিফ ইনস্টিটিউশনের ম্যানেজিং কমিটির নির্বাচন অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা ছিল। নির্বাচনী প্রচার প্রচারণার শেষ মূহুর্তে এসে ভোটার তালিকায় অনিয়ম ও শান্তি শৃংখলার অভিযোগ তুলে নির্বাচন বন্ধে হাইকোর্টে একটি রীট আবেদন জানালে হাইকোর্ট নির্বাচনের একদিন আগে বিদ্যালয় ম্যানেজিং কমিটির নির্বাচন স্থগিতাদেশ দিলে নির্বাচন বন্ধ হয়ে যায়।

পাঠকের মতামত...

Total Page Visits: 44 - Today Page Visits: 1

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*