Home » বরিশাল » বরিশালে শ্রমিকের মৃত্যু নিয়ে আতঙ্ক, হোম কোয়ারেন্টাইনে ৬০ পরিবার

বরিশালে শ্রমিকের মৃত্যু নিয়ে আতঙ্ক, হোম কোয়ারেন্টাইনে ৬০ পরিবার

বাংলার কন্ঠস্বর // বরিশালের গৌরনদী উপজেলার উত্তর বিল্বগ্রাম এলাকায় শ্বাসকষ্ট, জ্বর, কাশি ও ডায়রিয়ায় আক্রান্ত হয়ে হাসান ফকির নামের এক শ্রমিকের মৃত্যুতে এলাকাজুড়ে করোনা আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়েছে। এলাকায় আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ায় দুটি পাড়ার ৬০টি পরিবাররকে হোম কোয়ারেন্টাইনে রেখেছে স্থানীয় প্রশাসন।

মাহিলাড়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান সৈকত গুহ পিকলু সাংবাদিকদের জানান, হাসান ফকির জ্বর, কাশি, শ্বাসকষ্ট ও ডায়রিয়ায় ভুগছিলেন।

বৃহস্পতিবার রাতে সে নিজ বাড়ীতে মারা যায়। এঘটনায় ওই গ্রামের ৬০টি পরিবারকে হোম কোয়ারেন্টাইনে রাখা হয়েছে। এছাড়াও ইউনিয়ন পরিষদের পক্ষ থেকে হোম কোয়ারেন্টাইনে থাকা পরিবারদের খাদ্য সহায়তা দেওয়ার প্রস্তুতি গ্রহণ করা হয়েছে। নিহত হাসান ফকির ওই গ্রামের মৃত মব্বত আলী ফকিরের পুত্র। সে স্থানীয় মানিক সরদারের স্যানিটারীর দোকানে রিং, স্লাব নির্মাণ করতো।

মাহিলাড়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান সৈকত গুহ পিকলু আরও জানান, হাসান ফকির জ্বর, সর্দি, কাশি, শ্বাসকষ্ট ও ডায়রিয়ায় ভুগছিলেন। বৃহস্পতিবার দিবাগত মধ্যরাতে সে (হাসান) নিজ বাড়িতে মারা যায়। বিষয়টি আতঙ্কগ্রস্থ গ্রামবাসী তাকে (চেয়ারম্যান) জানালে তিনি গৌরনদী উপজেলা হাসপাতাল কতৃপক্ষকে অবহিত করেন।

ইউপি চেয়ারম্যান আরও জানান, এ ঘটনায় শুক্রবার সকালে সংশ্লিষ্ট প্রশাসনের নির্দেশে ওই গ্রামের ৬০টি পরিবারকে হোম কোয়ারেন্টাইনে রাখা হয়েছে। এছাড়াও ইউনিয়ন পরিষদের পক্ষ থেকে হোম কোয়ারেন্টাইনে থাকা পরিবারদের খাদ্য সহায়তা দেওয়ার প্রস্তুতি গ্রহণ করা হয়েছে।

গৌরনদী উপজেলা হাসপাতালের স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ কর্মকর্তা ডাঃ সাইয়্যেদ আমরুল্লাহ সাংবাদিকদের জানান, মৃত হাসান ফকির অনেকদিন থেকেই এ্যাজমাসহ বিভিন্ন রোগে ভুগছিলেন। তারপরেও যেহেতু তার মৃত্যু নিয়ে ওই এলাকায় করোনার গুজব ছড়িয়ে পরেছে, সেজন্য মৃত ব্যক্তির নমুনা সংগ্রহ করে ঢাকায় প্রেরণ করা হয়েছে। মৃত হাসান ফকিরের লাশ শুক্রবার সকালে নিজবাড়িতে দাফন করা হয়েছে বলেও জানান তিনি।

গৌরনদী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ইসরাত জাহান বলেন, ৪৮ বছর বয়সী ওই মৃত নির্মাণ শ্রমিক দীর্ঘ দিন ধরে যক্ষ্মা ও হাঁপানিতে ভুগছিলেন বলে জানান।

তিনি আরও বলেন, শুক্রবার ভোররাতে উপজেলার মাহিলাড়া ইউনিয়নের উত্তর বিল্লগ্রামের বাসিন্দা নির্মাণ শ্রমিক মারা যান।

“এ ঘটনায় গ্রামবাসীদের মাঝে করোনাভাইরাস আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে। তাই গ্রামবাসীদের শঙ্কামুক্ত রাখতে মৃতের পরিবারসহ আশেপাশের ৬০টি পরিবারকে হোক কোয়ারেন্টিনে থাকতে বলা হয়েছে।” এছাড়া, মৃত ব্যক্তির নমুনা সংগ্রহ করে ঢাকায় পাঠানোর ব্যবস্থা করা হয়েছে বলে জানান তিনি।

পাঠকের মতামত...

Total Page Visits: 1 - Today Page Visits: 1

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*