Home » খেলাধুলা » ‘আমি’ মেসি-রোনালদো-নেইমারের চেয়ে ভালো

‘আমি’ মেসি-রোনালদো-নেইমারের চেয়ে ভালো

বাংলার কন্ঠস্বর // মেসি রোনালদো নেইমারকে ভুলে যাও। আমি-ই সবার চেয়ে সেরা!’

বিজ্ঞ পাঠকদের কাছে প্রশ্ন। ওপরের উক্তিটা কোন খেলোয়াড় করতে পারে বলে আপনাদের কাছে মনে হয়?

সুইডিশ স্ট্রাইকার জ্লাতান ইব্রাহিমোভিচের হামবড়া স্বভাবের সঙ্গে সবাই পরিচিত। অনেকে তাই ইব্রার নাম বলতে পারেন। একই দোষে দুষ্ট হওয়ার কারণে আসতে পারে ইতালিয়ান স্ট্রাইকার মারিও বালোতেল্লির নামও। সাবেকদের বিবেচনায় আনলে মাথায় অবশ্যই পেলে, ম্যারাডোনাদের কথা আসবে। কিন্তু না। এদের কেউই নন। উক্তিটি ব্রাজিলের সাবেক স্ট্রাইকার এদিলসনের!

নাম শুনে চোখ কচলানো স্বাভাবিক। মনে হওয়া স্বাভাবিক, এ আবার কে? তাহলে একটু পরিচয় দেওয়া যাক ভদ্রলোকের।

সাধারণত সহকারী স্ট্রাইকার হিসেবে খেলতেন। ড্রিবলিংয়ে বেশ পারদর্শী ছিলেন। গোটা ক্যারিয়ারে মূলত ব্রাজিলিয়ান ক্লাবগুলোতেই খেলেছেন – গুয়ারানি, পালমেইরাস, করিন্থিয়ানস, ক্রুজেইরো, ফ্লামেঙ্গো, ভাস্কো দা গামা, ভিতোরিয়া, বাহিয়া ইত্যাদি। লিগ জিতেছেন ক্রুজেইরো ও পালমেইরাসের হয়ে। করিন্থিয়ানসের হয়ে রিয়াল মাদ্রিদ ও ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের মতো ক্লাবগুলোকে পেছনে ফেলে জিতেছেন ক্লাব বিশ্বকাপের শিরোপা। একই ক্লাবে খেলে ব্রাজিলের সেরা খেলোয়াড়ের পুরস্কার জিতেছিলেন ১৯৯৮ সালে। দেশের বাইরে পর্তুগালের বেনফিকা, আবুধাবির আল আইন ও জাপানের কাশিওয়া রেইসলের হয়ে আলো ছড়ালেও শীর্ষ ইউরোপিয়ান লিগগুলোর কোনো দল তাঁকে নেয়নি কখনও।

তাতে কী হয়েছে? নিজের চোখে এদিলসন এর মধ্যেই মেসি, রোনালদো বা নেইমারের চেয়ে এগিয়ে।কীভাবে?

নেইমার, রোনালদো বা মেসিদের কেউই এখনও বিশ্বকাপ জেতেননি। কিন্তু ২০০২ সালে ব্রাজিলের হয়ে বিশ্বকাপ জিতেছিলেন এদিলসন। এ জন্যই নিজেকে বাকি তিনজনের চেয়ে বড় বলেছেন সাবেক এই স্ট্রাইকার, ‘আমার সময়ে আমি নেইমারের চেয়ে ভালো ফুটবল খেলতাম। ওকে আমার চেয়ে ভালো হতে হলে বিশ্বকাপ জিততে হবে।’

টিভি বান্দেইরান্তেসকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে একই কারণে মেসিকেও নিজের চেয়ে পিছিয়ে রেখেছেন এদিলসন, ‘আমার ব্যক্তিত্ব মেসির চেয়ে বেশি। আর এমনিতেও, আমাকে ছাড়াতে হলে মেসিকে বিশ্বকাপ জিততে হবে।’

ওদিকে ক্রিস্টিয়ানো রোনালদোর ‘দক্ষতা’ তাঁর থেকে কম বলে মনে করেন এদিলসন, ‘রোনালদো একজন শক্তিসর্বস্ব খেলোয়াড়। ও দু পায়ে বল ভালো মারতে পারে, তবে আমি ওর চেয়ে বেশি কারিকুরি পারি।’

ব্রাজিলের হয়ে ২১ ম্যাচ খেলে ছয় গোল করেছেন এদিলসন। ২০০২ বিশ্বকাপে ছিলেন রোনালদো, রোনালদিনহো, কাফু, কার্লোস, রিভালদোদের সতীর্থ। তবে কখনই মূল একাদশের খেলোয়াড় ছিলেন না। ওই আসরে মাত্র দুটি ম্যাচের মূল একাদশে ছিলেন এদিলসন (কোস্টারিকা ও তুরস্ক)। চীন ও ইংল্যান্ডের বিপক্ষে বিকল্প খেলোয়াড় হিসেবে মাঠে নেমেছিলেন।

পাঠকের মতামত...

Total Page Visits: 3 - Today Page Visits: 1

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*