Home » বরিশাল » ভোলার প্রথম করোনা থেকে সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন নুরে আলম

ভোলার প্রথম করোনা থেকে সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন নুরে আলম

বাংলার কন্ঠস্বর // ভোলার মূল ভূখণ্ড থেকে বিচ্ছিন্ন মনপুরা উপজেলার একমাত্র করোনা আক্রান্ত রোগী ঢাকা ফেরত যুবক নুরে আলম সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন। গত ১১ দিন ধরে উপজেলার মনপুরা সরকারি ডিগ্রি কলেজে প্রাতিষ্ঠানিক আইসোলেশনে চিকিৎসাধীন ছিলেন তিনি।

নুরে আলম উপজেলার উত্তর সাকুচিয়া ইউনিয়নের ৭ নম্বর ওয়ার্ডের বাসিন্দা মো. সেলিমের ছেলে। তিনি ঢাকার একটি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের সদরঘাট শাখায় চাকরি করতেন। মঙ্গলবার সকাল ১০টায় উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. মাহমুদুর রশীদ ছাড়পত্র দিলে নুরে আলম বাড়ি ফেরেন।

সুস্থ হয়ে ফেরার সময় নুরে আলমকে ফুল দিয়ে শুভেচ্ছার মাধ্যমে বিদায় জানান উপজেলা চেয়ারম্যান শেলিনা আকতার চৌধুরী, ইউএনও বিপুল চন্দ্র দাস, স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. মাহমুদুর রশীদ, চিকিৎসকসহ অনেকে। এছাড়াও তার পরিবারের জন্য একটি ফলভর্তি ব্যাগ, ইফতার ও ঈদের খাদ্যসামগ্রী দেয়া হয়।

নুর আলম বলেন, সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরতে পারায় মহান আল্লাহর কাছে কৃতজ্ঞতা জানাচ্ছি। এই দুঃসময়ে সবচেয়ে বেশি সাহস যুগিয়েছেন ইউএনও স্যার। তিনি এখানে (আইসোলেশন সেন্টার) এসে আমার সঙ্গে আড্ডা দিতেন, রাতে ফোনে কথা বলতেন। আমার ফোনে ফ্লাক্সিলোডসহ খাওয়ার জন্য ফল দিতেন। এছাড়া হাসপাতালে ডাক্তার-নার্সরা সঠিকভাবে দায়িত্ব পালন করায় তাদের উছিলায় আল্লাহ আমাকে সুস্থ করেছেন।

উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ও মেডিকেল টিমের প্রধান ডা. মাহমুদর রশীদ বলেন, পরপর দুইবার করোনা আক্রান্ত যুবকের নমুনার পরীক্ষার ফলাফলে তার শরীরে করোনাভাইরাস না থাকায় তাকে মেডিকেল ছাড়পত্র দেয়া হয়েছে।

ইউএনও বিপুল চন্দ্র দাস বলেন, করোনা আক্রান্ত যুবক সুস্থ হওয়ায় সবার মাঝে স্বস্তি ফিরে এসেছে। উত্তর সাকুচিয়া ইউনিয়নের ১০টি বাড়ির ৪১ টি ঘরের লকডাউন প্রত্যাহার করে নেয়া হয়েছে।

উল্লেখ্য, গত ২১ এপ্রিল নুরে আলম ঢাকা থেকে বাড়িতে ফেরেন। খবর পেয়ে স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. মাহামুদুর রশীদ নুরে আলমসহ আরো তিনজনের নমুনা সংগ্রহ করে বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজে পরীক্ষার জন্য পাঠান। ২৩ এপ্রিল রাতে নুরে আলমের করোনা শনাক্ত হওয়ার তথ্য আসে। অন্য তিনজনের শরীরে করোনাভাইরাস পাওয়া যায়নি। রাতেই ইউএনও, ওসি ও হাসপাতালের চিকিৎসক-নার্সরা নুরে আলমকে বাড়ি থেকে এনে মনপুরা সরকারি ডিগ্রি কলেজের প্রাতিষ্ঠানিক আইসোলেশনে রেখে চিকিৎসা দেয়া হয়। একইসঙ্গে আক্রান্ত যুবকের পরিবারের ছয়জন সদস্যসহ আরো ১৪ জনের নমুনা সংগ্রহ করে পরীক্ষার জন্য পাঠালে সেগুলোর রির্পোটও নেগেটিভ আসে।

ভোলা স্বাস্থ্য বিভাগ সূত্রে জানা যায়, ভোলায় এ পর্যন্ত করোনা আক্রান্ত হয়েছে পাঁচজন। এদের মধ্যে বোরহানউদ্দিনে একজন, মনপুরায় একজন, ভোলা সদর উপজেলায় তিনজন। এদের মধ্যে একজন সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরে গেছেন। বাকিরা বাড়িতে থেকেই চিকিৎসা নিচ্ছেন।

পাঠকের মতামত...

Print Friendly, PDF & Email
Total Page Visits: 14 - Today Page Visits: 1

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*