Home » বরিশাল » ভোলা » ভোলা পূর্ব ইলিশা যৌতুকের দাবিতে গৃহবধূকে শারীরিক নির্যাতনের অভিযোগ 

ভোলা পূর্ব ইলিশা যৌতুকের দাবিতে গৃহবধূকে শারীরিক নির্যাতনের অভিযোগ 

মো:মেহেদী হাসান সুমন,ভোলা ।।
ভোলা সদর উপজেলা পূর্ব ইলিশা ৭ নং ওয়ার্ড মোল্লা গৃহবধূ মোছাম্মদ  রাহিমা কে শারীরিক নির্যাতন করার অভিযোগ ওঠে।
এ বিষয়ে ঘটনাস্থলে গেলে মোসাম্মৎ রাহিমা বাবা জানায়।
গত ছয় মাস আগে ফ্যামিলির মতে রাহিমার বিয়ে হয়। বিয়ের দুই দিন পরেই রাহিমার শশুর মোঃ নিজাম আমাদের বাড়ি তে রাহিমা কে আনতে যায় তখন আমি জিজ্ঞাসা করলাম বিয়ে হলো মাত্র দুই দিন এত তাড়াতাড়ি নিতে আসলেন কেন। নিজাম আমাকে বলল আমার আম্মা খুব অসুস্থ তাই এ কথা বলার পর আমি মেয়েকে  দিয়ে দিলাম তাদের বাড়িতে।
বাসর ঘরে প্রথম রাত্রেই আমার মেয়েকে জামায় মো:নিরব তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে মারধর করে। এ কথা আমার কানে আসলে আমি বিয়াই কে জিজ্ঞাসা করলে সে উত্তর দেয় না এগুলো মিথ্যে কথা।আমাদের বাড়িতে এরকম কিছু ঘটেনি
বেশ কয়েকদিন এভাবে কেটে গেল রাহিমা কে নিয়ে আমাদের বাসায় বেড়াতে আসলো কয়েক দিন থেকে আবার চলে গেল বিয়ের ছয় মাসের ভিতরে এপর্যন্ত অনেকবার এরকম ভাবে মারধর করেছে আমি এলাকার মুরব্বিদের কে  জানিয়েছে বিষয়টি।রোযা র ভিতরে  জামায় কে পোশাক কেনার জন্য ১০ হাজার টাকা দিয়েছি সে আমাকে বলে ১০ হাজার টাকা আমার একটা ফ্রেন্ড এর দাম না টাকাটা ছিটকে ধরে মেলা মারলো আমার সামনে। আমি টাকা দিয়ে চলে আসছে আমাদের বাড়িতে পরের দিন আমার মেয়ে আমাকে ফোন করে বলে। বাবা আমাকে নিরব আরো এক লক্ষ টাকার জন্য মারধর করতেছে এখান থেকে আমাকে বাঁচাও।
খবর পেয়ে আমি লোকজন সহকারে নিয়ে আমার মেয়েকে উদ্ধার করে ভোলা সদর হাসপাতালে ভর্তি করে। এই বিষয়ে ভোলা সদর মডেল থানায় মামলার প্রস্তুতি চলছে বলে জানান তিনি।
এ বিষয়ে নীরব দের বাসা গেলে বাসায় নিরব এর আমাকে পাওয়া যায় তার সাথে কথা বললে তিনি যানান পিটাপিটি সময় আমি বাসায় ছিলাম না পরে এসে শুনেছি তখন ডাক্তারের কাছে নিয়ে ঔষধ এনে দিয়েছি। কিছুক্ষণ পরে নিরব বাড়িতে আসে নিরবের সাথে কথা বললে নিরব জানান। গত ছয় মাস হয়েছে আমি রাহিমা  কে বিয়ে করেছি ছয় মাসের ভেতরে শুধু শ্বশুরবাড়ি থেকে জামা কাপড় দিয়েছে।  গত দুইদিন আগে আমাকে জামা কাপড়  কেনাকাটার জন্য ৪০০০ টাকা দিয়েছে।
আমি আমার ফুফাতো ভাইয়ের সাথে পাটনার দোকান করি দোকানের মালামাল আনার জন্য ভোলা গেলাম সেখান থেকে এসে স্বাস্থ্য খারাপ শুয়ে রইলাম । রাহিমা এসে বলে চলো মারকেটে যাবো আমি বললাম এখন তো ভোলা সদর পুলিশ ঝামেলা করবে কালকে সকালে যাবো সে বললো না আমাকে এখন নিতে হবে। তখন কথা কাটাকাটি করে রাহিমা আমাকে ধাক্কা মাড়ে খাট থেকে নিছে ফেলে দেয়। তখন ক্ষিপ্ত হয়ে আমি রাহিমা কে গরম খুচুনি দিয়ে মারধর করি।তবেঁ টাকা পয়সা যৌতুক এগুলো সব মিথ্যে।

পাঠকের মতামত...

Total Page Visits: 13 - Today Page Visits: 1

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*