Home » আন্তজাতিক » ৪৯ দিন পর ঘরের বাইরে স্পেনের মানুষ

৪৯ দিন পর ঘরের বাইরে স্পেনের মানুষ

বাংলার কন্ঠস্বর // স্পেনে করোনার প্রকোপ কমতে থাকায় গত শনিবার থেকে দেশটির মানুষ ঘর থেকে বের হওয়ার সুযোগ পাচ্ছে। স্পেনে করোনার প্রকোপ কমতে থাকায় ৪৯ দিন পর গত শনিবার থেকে দেশটির সাধারণ মানুষ ঘর থেকে বের হওয়ার সুযোগ পাচ্ছে। এমনকি এক শহর থেকে অন্য শহরে যাওয়ার অনুমতি পাচ্ছে আজ সোমবার থেকে।

প্রথমে অস্ট্রিয়া, পরে ইতালি—ধীরে ধীরে খুলতে শুরু করেছে ইউরোপের করোনাজট। তালিকায় ৩ নম্বরে থাকা দেশটির নাম স্পেন। টানা ৪৯ দিন হোম কোয়ারেন্টিনে থাকার পর দেশটির মানুষ ঘর থেকে বের হওয়ার এই সুযোগ পেয়েছে।

করোনাভাইরাসের প্রকোপ কমতে থাকায় পরিস্থিতি বিবেচনা করে শিশু-কিশোরদের পাশাপাশি বয়স্ক লোকজনকেও শনিবার (২ মে ) থেকে মুক্ত বাতাসে বের হওয়ার সুযোগ দিয়েছে সরকার। তবে বয়সের তারতম্য অনুসারে নির্দিষ্ট সময়ও ভাগ করে দেওয়া হয়েছে। সবাইকে এই নির্দিষ্ট সময় মেনে চলতে হবে।

বলতে গেলে করোনাভাইরাসের কারণে দেওয়া লকডাউন কার্যত তুলে নিচ্ছে স্পেন সরকার। ভাইরাসটিতে আক্রান্ত রোগী ও মৃত্যুর সংখ্যা কমতে থাকায় চলমান জরুরি অবস্থার অনেক বিষয় শিথিল করেছে।

শনিবার সারা দিন স্পেনের রাস্তায় মানুষকে চলাচল করতে দেখা গেছে। খোলা হয়েছে কিছু ব্যবসাপ্রতিষ্ঠান, রেস্তোরাঁ। তবে প্রতিষ্ঠানগুলোর মালিকদের মানতে হচ্ছে সরকারের বেঁধে দেওয়া কিছু শর্ত। এ ছাড়া শহরজুড়ে ৪ ধাপের পরিকল্পনা নিয়েছে কর্তৃপক্ষ। ধীরে ধীরে অভ্যন্তরীণ ও আন্তর্জাতিক ব্যবসায় চালু করা হবে বলেও জানিয়েছে সরকার।স্পেনে করোনার প্রকোপ কমতে থাকায় ৪৯ দিন পর মানুষ এক শহর থেকে অন্য শহরে যাওয়ার অনুমতি পাচ্ছে।

কী কী নিয়ম পালন করতে হবে

শারীরিক অনুশীলন ও সংক্ষিপ্ত হাঁটা বা পায়চারির জন্য সকাল ৬টা থেকে ১০টা এবং বিকেল ৮টা থেকে রাত ১১টা পর্যন্ত সময় নির্ধারণ করা হয়েছে। এ ক্ষেত্রে ১৪ বছর বয়সী মানুষ এ সময়ের মধ্যে দিনে একবার ঘর থেকে বের হতে পারবে। তবে তাদের বাড়ির ১ কিলোমিটারের মধ্যে থাকতে হবে।

একই বাড়ির দুজন একসঙ্গে সংক্ষিপ্ত হাঁটতে বা পায়চারি করতে পারবেন। তবে অন্য লোকজন থেকে ২-৩ মিটার দূরত্ব বজায় রাখতে হবে। এ ছাড়া খেলাধুলা কিংবা শারীরিক অনুশীলন করতে হলে এককভাবে তা করতে হবে।

সত্তর বা সত্তরোর্ধ্ব প্রবীণ ও পরনির্ভরশীল ব্যক্তিরা সকাল ১০টা থেকে দুপুর ১২টা ও সন্ধ্যা ৭টা থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত একা কিংবা কোনো সঙ্গী বা সাহায্যকারী একজনকে (যাঁদের বয়স ১৪ থেকে ৭০ বছর) নিয়ে ঘর থেকে বের হতে পারবেন।

১৪ বছরের কম বয়সী শিশুদের বাইরে বের হওয়ার সময় নির্ধারণ করা হয়েছে দুপুর ১২টা থেকে সন্ধ্যা ৭টা। মা-বাবা বা আয়ার মধ্যে যেকোনো একজন তাদের সঙ্গে যেতে পারবেন। বাড়ির ১ কিলোমিটারের মধ্যে অবস্থান এবং নির্ধারিত সময়ের মধ্যে দিনে একবার বাড়ি থেকে শিশুদের নিয়ে বেরোতে পারবেন অভিভাবক।

স্পেনের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে, যেসব মিউনিসিপ্যালটির জনসংখ্যা ৫ হাজারের কম, সেখানে উল্লেখিত সময় নির্ধারণ তালিকা প্রযোজ্য হবে না।

প্রসঙ্গত, করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাবের ফলে স্পেনে গত ১৪ মার্চ থেকে জরুরি সতর্কতা জারি করা হয়। এরপর থেকেই দেশটির সাধারণ মানুষ কার্যত গৃহবন্দী ছিলেন। করোনাভাইরাসের প্রকোপ পুরোপুরি নিয়ন্ত্রণে না এলেও সরকার চলমান জরুরি অবস্থায় অনেক বিষয় শিথিল করেছে। ২৬ এপ্রিল থেকে শিশু-কিশোরেরা একটি নির্দিষ্ট সময়ে ঘর থেকে বের হওয়ার সুযোগ পেয়েছে।

স্পেনজুড়ে ৪ ধরনের পরিকল্পনা বাস্তবায়নে কাজ করছে সরকার—তথ্য দেওয়া হলেও সেগুলো কী, তা এখনো প্রকাশ করা হয়নি। প্রধানমন্ত্রী পেদ্রো সানচেজ মনে করছেন, পরিকল্পনার সঠিক বাস্তবায়ন ও ফলপ্রসূ হলে জুন মাসের শেষের দিকে করোনাভাইরাস থেকে স্বাভাবিক জীবনযাত্রায় ফিরবে স্পেন।

পাঠকের মতামত...

Print Friendly, PDF & Email
Total Page Visits: 7 - Today Page Visits: 1

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*