Home » রাজশাহী » অন্ধকারে ঢিল ছুড়ছেন বিএনপি নেতারা!

অন্ধকারে ঢিল ছুড়ছেন বিএনপি নেতারা!

বাংলার কন্ঠস্বর // অসুস্থ বিএনপি চেয়ারপার্সন খালেদা জিয়ার চিকিৎসার বিষয়ে অন্ধকারে ঢিল ছুড়ছেন বিএনপির নেতারা। কারণ খালেদা জিয়ার ছোট ভাই শামীম ইস্কান্দার গত ২৭ আগস্ট মুক্তির মেয়াদ বাড়াতে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে যে আবেদন করেছেন, সেই আবেদনের বিষয়ে বিএনপির নেতারা কিছুই জানেন না। আর আবেদনে কী লেখা আছে তাও জানেন না তারা। এ বিষয়ে শুধু বেগম জিয়ার পরিবারের সদস্যরা জানেন। কিন্তু এরপরও দলটির নেতারা বলছেন, বেগম জিয়ার মুক্তি বিদেশে না যাওয়ার শর্তটি অমানবিক। বিএনপির কয়েকজন শীর্ষ নেতার সঙ্গে কথা বলে এই সব তথ্য জানা গেছে।

 

খালেদা জিয়ার মুক্তির মেয়াদ বাড়ানোর আবেদনের পর গত ৩ সেপ্টেম্বর সরকার তার সাময়িক মুক্তির মেয়াদ বৃদ্ধি করে। কিন্তু তার মুক্তিতে বিদেশে না যাওয়ার শর্তকে অমানবিক বলছে বিএনপি। আর দেশে থেকে চিকিৎসা নেয়ার যে শর্ত বেগম জিয়াকে দেয়া হয়েছে তাও প্রত্যাহারের দাবি জানিয়েছে দলটি। তবে সরকার বলছে, বিদেশে নিয়ে চিকিৎসার ব্যাপারে পরিষ্কারভাবে তারা আবেদনে কিছু বলেননি।

এবিষয়ে আইনমন্ত্রী আনিসুল হক বলেন, দেশে নিয়ে চিকিৎসার ব্যাপারে পরিষ্কারভাবে তারা (খালেদা জিয়ার পরিবার) এই আবেদনে চান নাই। এছাড়া তারা স্থায়ী মুক্তির আবেদন করেছিলেন। সেখানে আমরা আইনগত দিক থেকে সাজা ছয় মাস স্থগিত করে এই সময় পর্যন্ত তার মুক্ত থাকার মেয়াদ বাড়ানোর মতামত দিয়েছি।

তবে এবিষয়ে বিএনপির স্থায়ী কমিটির প্রভাবশালী সদস্য নজরুল ইসলাম খান বলেন, চিকিৎসার জন্য তার (বিএনপি চেয়ারপারসন) বাইরে যাওয়া নিষিদ্ধ করাটা অমানবিক বলে আমরা মনে করি। সুচিকিৎসার জন্য প্রয়োজনে তিনি যাতে বিদেশে যেতে পারেন, সে ব্যাপারে যে বিধি নিষেধ, সেটা প্রত্যাহার করাটা মানবিক একটা কর্ম বলে আমরা মনে করি। এটা আমাদের দাবি।

গত ২৫ মার্চ নির্বাহী আদেশে দুর্নীতির দুই মামলায় দণ্ডিত খালেদা জিয়াকে করোনাভাইরাস মহামারীর মধ্যে ছয় মাসের জন্য সাময়িক মুক্তি দেয় সরকার। এরপর থেকে গুলশানে নিজের ভাড়া বাসা ফিরোজায় থেকে ব্যক্তিগত চিকিৎসকদের তত্ত্বাবধায়নে চিকিৎসা নিচ্ছেন তিনি।

মুক্তির মেয়াদ শেষ হতে কিছুদিন বাকি থাকলেও খালেদা জিয়ার ছোট ভাই শামীম ইস্কান্দার গত ২৭ আগস্ট মেয়াদ বাড়াতে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে আবেদন করেন। সেই আবেদন আইন মন্ত্রণালয় যায় পরীক্ষার জন্য। পরে গত ৩ সেপ্টেম্বর এরপর আইন মন্ত্রী জানান, খালেদা জিয়ার দণ্ডের কার্যকারিতা আরো ৬ মাসের জন্য স্থগিত রাখার বিষয়ে সম্মতিসূচক মতামত দিয়েছে আইন মন্ত্রণালয়। আমাদের অভিমত আমরা দিয়েছি, শর্ত হচ্ছে তিনি আগে যে শর্তে ছিলেন অর্থাৎ বাসা ও দেশে থেকে চিকিৎসা নেবেন।

এবিষয়ে তিনি বলেন, তার সুচিকিৎসার জন্য প্রয়োজনে তাকে বাইরে নিতে হবে। তিনি যাবেন কী যাবেন না, যাওয়ার প্রয়োজন হবে কী হবে না- সেটা ভিন্ন কথা। কিন্তু সরকারি আদেশে তার বাইরে যাওয়া নিষিদ্ধ করাটা অমানবিক বলে আমরা মনে করি।

পাঠকের মতামত...

Print Friendly, PDF & Email
Total Page Visits: 55 - Today Page Visits: 1

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*