Home » লিড নিউজ » বরিশাল বিসিক শিল্প মালিক সমিতির নেতৃত্বের পরিবর্তন আসছে!

বরিশাল বিসিক শিল্প মালিক সমিতির নেতৃত্বের পরিবর্তন আসছে!

বাংলার কন্ঠস্বর // বরিশাল ক্ষুদ্র ও কুটির শিল্প (বিসিক) কর্পোরেশন ব্যবসায়ী মালিক সমিতির নেতৃত্বের বড় ধরনের পরিবর্তন আসছে। অধিকাংশ ব্যবসায়ীরা বর্তমান সভাপতি মিজানুর রহমানের ওপর অনাস্থা দিয়েছেন। এবং তার বিরুদ্ধে অনিয়ম-দুর্নীতির ফিরিস্তি বরিশাল সিটি কর্পোরেশন মেয়রের কাছে তুলে ধরে প্রতিকার চেয়েছেন। মঙ্গলবার সকালে উত্তর কাউনিয়া এলাকায় বিসিক সম্মুখে এলাকাবাসীর ব্যানের মানববন্ধন কর্মসূচি পালন শেষে অধিকাংশ ব্যবসায়ী সিটি মেয়রের কালিবাড়ির বাসায় যান। বর্তমান কমিটির সাধারণ সম্পাদকের নেতৃত্বে গিয়ে সভাপতির দুর্নীতির ফিরিস্তি তুলে ধরে তার বিরুদ্ধে অনাস্থা দেওয়ার বিষয়টি ঘোষণা দেন। এসময় ব্যবসায়ী বিসিকের পূর্বের কমিটি ভেঙে নতুন করে গঠনে মেয়র সেরনিয়াবাত সাদিক আব্দুল্লাহ’র হস্তক্ষেপ কামনা করেন। নিশ্চিত হওয়া গেছে, ব্যবসায়ীদের এমন দাবির প্রেক্ষিতে মেয়র সম্মতি দিয়েছেন। এই তথ্য সেখানে থাকা পুর্বের কমিটির একটি দায়িত্বশীল নেতা বরিশালটাইমসকে নিশ্চিত করেছেন। 

সূত্র জানায়, বরিশাল ক্ষুদ্র ও কুটির শিল্প (বিসিক) কর্পোরেশন উন্নয়নে সরকার ২০ কোটি টাকা বরাদ্দ দিলে সম্প্রতি কাজ শুরু হয়। সেই কাজে নানান অনিয়ম-দুর্নীতিসহ বরাদ্দের অর্থ লুটপাট অভিযোগ ওঠে। এই লুটপাটে বরিশালের দুই কথিত সাংবাদিক নেতার সম্পৃক্ত থাকার অভিযোগ উঠলে ব্যবসায়ীরা নড়েচড়ে বসে। প্রতিকার চেয়ে মঙ্গলবার সকালে বিসিক সম্মুকে মানবন্ধনের ডাক দিলে সাথে যুক্ত হয়ে এলাকাবাসী বর্তমান সভাপতি মিজানের বিরুদ্ধে সেচ্ছাচারিতার অভিযোগ তুলে ধরেন।

এক ব্যবসায়ী জানান, মানববন্ধন শেষে বর্তমান কমিটির সাধারণ সম্পাদক মিললের নেতৃত্বে সকল ব্যবসায়ীরা সিটি মেয়রের সাথে সাক্ষাতের উদ্দেশে তার কালিবাড়ির বাসায় যান। সেখানে মেয়র ব্যবসায়ীদের অভিযোগ-অনুযোগ শোনার পরে শান্ত থাকার পরামর্শ দেন। এসময় ব্যবসায়ীরা বর্তমান সভাতি মিজানের বিরুদ্ধে অনাস্থা দেওয়ার পাশাপাশি পুরাতন কমিটি ভেঙে নতুন করে গঠন করতে সহযোগিতা কামনা করেন। তখন মেয়র পরামর্শমূলক মন্তব্য করেন ‘বিসিক উন্নয়নের স্বার্থে অধিকাংশ ব্যবসায়ী যে সিদ্ধান্ত নেবেন, সেটাই বাস্তবায়ন করবেন।’

বৈঠকে অংশ নেওয়া এক নেতা নাম না প্রকাশ করার শর্তে জানিয়েছেন, গত কয়েক বছরে মিজান সভাপতি পদে বহাল থেকে ছোট ব্যবসায়ীদের জিম্মি করে নিজের একক সিদ্ধান্ত প্রতিষ্ঠা করেন। এনিয়ে চরম ক্ষোভ চরমাকারে তৈরি হলেও ভয়ে কেউ মুখ খোলেননি। সর্বশেষ ছাত্রলীগ নেতা রইজ আহম্মেদ মান্নাসহ তিনজনের বিরুদ্ধে মারধর ও ছিনতাইয়ের মিথ্যে অভিযোগ এনে তার ভাই শফিকুল আজমকে দিয়ে একটি মামলা করিয়েছে। সেই মামলায় কয়েকজন ব্যবসায়ীকে সাক্ষী হিসেবে রাখলেও বিষয়টি সম্পর্কে তারা কেউ অবগত নন। এই বিষয়গুলো মেয়রের কাছে তুলে ধরে প্রতিকার চাওয়া হয়েছে, জনান ব্যবসায়ী।

এদিকে একটি দায়িত্বশীল সূত্র জানিয়েছে, সিটি মেয়র ব্যবসায়ীদের সকল অভিযোগ গুরুত্ব দিয়ে শুনলেও তাৎক্ষণিক কোনো ফয়সালা দেননি। বরং সংক্ষুব্ধ ব্যবসায়ীদের শান্ত থাকার পরামর্শ দিয়েছেন এবং ভাবতে সময় চেয়েছেন। সূত্রটি জানায়- অন্তত ৪০ ব্যবসায়ীর আপত্তির প্রেক্ষিতে বর্তমান কমিটি ভেঙে দেওয়া না হলেও সভাপদি পদে মিজানকে আর রাখা সম্ভব হবে না, এমন পরিবেশ তৈরি হয়েছে। কিন্তু নতুন কমিটি হলে তাতে কে সভাপতি বা নেতৃত্বে থাকছেন তাও নিশ্চিত হওয়ায় যায়নি।

তবে যদ্দুর জানা গেছে, তাতে মেয়র আজকে রাতে বা কাল আরেক দফা ব্যবসায়ীদের নিয়ে বসতে পারেন। সেখানে হয়তো বিসিক ব্যবসায়ী মালিক সমিতির নতুন কমিটির বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়া হতে পারে।

পাঠকের মতামত...

Print Friendly, PDF & Email
Total Page Visits: 54 - Today Page Visits: 1

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*