ঢাকাFriday , 5 February 2016
  1. অপরাধ
  2. অর্থনীতি
  3. আইন ও আদালত
  4. আন্তর্জাতিক
  5. এক্সক্লুসিভ
  6. করোনা আপডেট
  7. খুলনা
  8. খেলাধুলা
  9. গণমাধ্যম
  10. চট্টগ্রাম
  11. জাতীয়
  12. ঢাকা
  13. তথ্য-প্রযুক্তি
  14. প্রচ্ছদ
  15. প্রবাসে বাংলাদেশ
আজকের সর্বশেষ সবখবর

কেন্দ্রীয় নেতা ও এমপিদের ঘিরেই মনোনয়ন প্রত্যাশীদের দৌড়ঝাঁপ

Link Copied!

আরিফিন তুষার ॥ পৌরসভার পর এবার ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনের প্রস্তুতি শুরু করেছে ক্ষমতাসীণ আওয়ামী লীগ, বিএনপিসহ অন্যান্য দলগুলো। মাঠ পর্যায়ে নেতাকর্মীদের মধ্যে শুরু হয়েছে নির্বাচনের ডামাডোল। মনোনয়ন প্রত্যাশীরা এলাকায় প্রচারণার পাশাপাশি যোগাযোগ রাখার চেষ্টা করছেন কেন্দ্রীয় নেতাদের সঙ্গে। দলীয় কার্যালয়ের সঙ্গে তারা ধ্বর্না দিচ্ছেন নেতাদের বাসা-অফিসেও। মনোনয়ন বোর্ডে না থাকলেও এমপিদের সঙ্গেও যোগাযোগ রাখছেন অনেকেই। দলীয় সূত্রে জানা গেছে, নৌকা প্রতীকে এই নির্বাচনেও নিরঙ্কুশ বিজয় পেতে চায় ক্ষমতাসীনরা। ইতিমধ্যেই এ নির্বাচনের মনোনয়ন পদ্ধতি চূড়ান্ত করেছে দলটির হাই কমান্ড। ইউনিয়ন, উপজেলা ও জেলা কমিটির সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক প্রার্থীর নাম সুপারিশ করে স্থানীয় সরকার মনোনয়ন বোর্ডে কাছে পাঠাবে। বোর্ড চূড়ান্ত প্রার্থী তালিকা ঘোষণা করবে। তবে বিএনপি ও জাতীয় পার্টিসহ অন্যান্য দল গুলোর মনোনয়ন প্রক্রিয় এখনও চূড়ান্ত না হলেও দলীয় ভাবে চলছে আলাপ আলোচনা। নেতাদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, এরই মধ্যে এ নির্বাচনে দলীয় মনোনয়ন প্রত্যাশীদের তৎপরতা শুরুহয়ে গেছে। মনোনয়ন বোর্ডের সদস্যদের পাশাপাশি যোগাযোগের চেষ্টা করছেন কেন্দ্রীয় নেতাদের সঙ্গেও। গত কয়েকদিনে স্থানীয় পর্যায়ের নেতাদের বাসা বাড়ি থেকে শুরু করে দলের কেন্দ্রীয় রাজনৈতিক কার্যালয়ে গিয়ে অনেক মনোনয়ন প্রত্যাশীরা ঢু মারছেন বলে সূত্রে জানা গেছে। দলীয় সভাপতির কার্যালয়ের এক কর্মচারী নাম না প্রকাশ না করার শর্তে এ প্রতিবেদককে বলেন, যে কোনও নির্বাচনের আগেই অফিসে ভির বেড়ে যায়। এখনো প্রতিদিনই অনেকেই আসছেন। নেতাদের সঙ্গে দেখা করে তাদের সালাম দেওয়ার চেষ্টা করছেন। এবার মনোনয়ন বোর্ডে এমপিদের রাখা না হলেও সম্ভাব্য প্রার্থীদের অনেকেই যোগাযোগ রাখছেন তাদের সঙ্গেও। অনেকেই মনে করছেন- মনোনয়ন বোর্ডে না রাখলেও আড়ালে থেকে ছুড়ি ঘোরাবেন তারাই। কারণ হিসেবে তারা মনে করছেন, অনেক এমপিই জেলা বা উপজেলা কমিটিতে আছেন। তাছাড়া দল ক্ষমতায় থাকায় ইউনিয়ন ও উপজেলা নেতাদের বেশিরভাগই এমপিদের সিদ্ধান্তের বাইরে যাবেন না। কারণ এর সঙ্গে স্বার্থ আছে। যদিও আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় নেতারা বলছেন সংসদ সদস্যদের না রাখার সিদ্ধান্ত প্রার্থী বাছাইয়ে কোনও প্রভাব ফেলবে না। এ বিষয়ে আওয়ামী লীগের এক নেতা নাম প্রকাশ না করার সার্থে বলেন, কে বেশি ভাল প্রার্থী তা এমপিদের চেয়ে ইউনিয়ন ও উপজেলা নেতারাই ভাল জানেন। গণতন্ত্রকে প্রাতিষ্ঠানিক রূপ দিতে স্থানীয় জনপ্রিয়তার ভিত্তিতে আওয়ামী লীগের প্রার্থী মনোনীত করা হবে। এই নির্বাচনে প্রার্থী বাছাইয়ে সংসদ সদস্যদের কোনও হাত থাকবে না বলে দলীয়ভাবে সিদ্ধান্ত হয়েছে। একই ভাবে বিএনপিতেও জেলা পর্যায়ে মনোনয় বোর্ডের কমিটি থাকবে তারা উপজেলা ও ইউনিয়ন পর্যায়ের নোতাদের মতামতের বিত্তিতে মনোনয় চূড়ান্ত করার জন্য কেন্দ্রে প্রেরণ করবে। পৌরসভা নির্বাচনে জেলা পর্যায়ের নেতাদের মতামতের উপর ভিত্তি করেই মনোনয়ন চূড়ান্ত করা হয়। এমনকি দলের মনোনীত ব্যক্তির বিরুদ্ধে কোন নেতা অবস্থান নিলে তার বিরুদ্ধে সাংগঠনিক ব্যবস্থা গ্রহণের পক্ষে দলের হাই কমান্ড। সূত্রমতে, তৃণমূলের জনপ্রিয় নেতাদেরই নির্বাচনে নৌকা প্রতীকে নির্বাচন করার সমর্থন দেবে আওয়ামী লীগ। তবে বিগত পৌরসভা নির্বাচনে দলীয় প্রার্থীর বিরুদ্ধে যারা কাজ করেছেন তারা ইউপি নির্বাচনে নৌকা প্রতীক না পাওয়ার সম্ভাবনা বেশি। একই সঙ্গে বিদ্রোহী ঠেকতে পৌরসভা নির্বাচনে যারা দলীয় সিদ্ধান্ত না মেনে নির্বাচন করেছেন তদের বিরুদ্ধে দৃষ্টান্ত মূলক ব্যবস্থা নেওয়ার পক্ষে দলের হাই কমান্ড। সর্বশেষ কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহীর বৈঠকে অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে তদন্ত শেষ করতে ৭ সাংগঠনিক সম্পাদককে তাগাদা দেওয়া হয়েছে বলেও জানা গেছে।

এই সাইটে নিজম্ব নিউজ তৈরির পাশাপাশি বিভিন্ন নিউজ সাইট থেকে খবর সংগ্রহ করে সংশ্লিষ্ট সূত্রসহ প্রকাশ করে থাকি। তাই কোন খবর নিয়ে আপত্তি বা অভিযোগ থাকলে সংশ্লিষ্ট নিউজ সাইটের কর্তৃপক্ষের সাথে যোগাযোগ করার অনুরোধ রইলো।বিনা অনুমতিতে এই সাইটের সংবাদ, আলোকচিত্র অডিও ও ভিডিও ব্যবহার করা বেআইনি।