ঢাকাFriday , 8 January 2016
  1. অপরাধ
  2. অর্থনীতি
  3. আইন ও আদালত
  4. আন্তর্জাতিক
  5. এক্সক্লুসিভ
  6. করোনা আপডেট
  7. খুলনা
  8. খেলাধুলা
  9. গণমাধ্যম
  10. চট্টগ্রাম
  11. জাতীয়
  12. ঢাকা
  13. তথ্য-প্রযুক্তি
  14. প্রচ্ছদ
  15. প্রবাসে বাংলাদেশ
আজকের সর্বশেষ সবখবর

প্রসঙ্গ মাহমুদুর রহমান: ফখরুলের বক্তব্যে পিনপতন নীরবতা

Link Copied!

বাংলার কন্ঠস্বরঃ ‘মাহমুদুর রহমান একজন জীবন্ত কিংবদন্তি’-শুরুটাই করলেন এভাবে। এই মাহমুদুর রহমানকে আর পরিচয় করিয়ে দেয়ার দরকার নেই। এক অসমসাহসী সম্পাদক এবং নন্দিত লেখক তিনি। বাংলাদেশের শীর্ষস্থানীয় দৈনিক আমার দেশ-এর সম্পাদক তিনি। তাকে যিনি ‘জীবন্ত কিংবদন্তি’ বললেন তিনিও এদেশের রাজনীতিতে এক জীবন কিংবদন্তি, অন্তত তার সততা ও পরিশীলিত রাজনীতির জন্য। তিনি বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। একটি রাজনৈতিক দল হিসেবে বিএনপির প্রতি কারো ভালো লাগা-মন্দলাগা থাকতেই পারে। তবে মির্জা ফখরুলের পাণ্ডিত্য এবং শিষ্টাচার তাকে করে তুলেছে মহীয়ান। দৈনিক আমার দেশ বন্ধ এবং মাহমুদুর রহমানের কারাবন্দিত্বের ১০০০ দিন উপলক্ষে শুক্রবার সকালে রাজধানীর ইঞ্জিনিয়ার্স ইন্সটিউটটে আমার দেশ পরিবার এক ‘প্রতিবাদী আলোচনা’ সভার আয়োজন করে। তাতে প্রধান অতিথি ছিলেন মির্জা ফখরুল।সেখানে মাহমুদুর রহমান সম্পর্কে তিনি জানালেন অনেক অজানা কথা। মির্জা ফখরুল জানান, আওয়ামী লীগ সরকারের সময়ে কয়েক দফায় তিনি মাহমুদুর রহমানের সঙ্গে প্রায় এক বছর একই সময় কারাগারে কাটিয়েছেন।। ‘মাহমুদুর রহমানকে রাখা হয়েছে কাশিমপুর কারাগারের তৃতীয় তলার সর্বশেষ কক্ষে। আমি অবাক হয়ে যাই কারাগারেও তিনি প্রতিটি মুহূর্ত সময় কাজে লাগাচ্ছেন- লিখছেন,বই পড়ছেন তিনি,’ জানালেন ফখরুল। ‘আমরা মাঝে মাঝে হতাশ হয়ে পড়েছি, নীরব হয়ে পড়েছি। কিন্তু মাহমুদ ভাইকে দেখেছি তিনি এতটুকু ভেঙে পড়েননি। তার সাহসে সামান্য চিড় ধরেনি।’ আওয়ামী লীগ সরকারের আমলে ৬ বার জেল খেটেছেন মির্জা ফখরুল ইসলামও। মির্জা ফখরুল যখন বক্তব্য রাখছিলেন তখন সেখানে পিনপতন নীরবতা বিরাজ করছিলেন। কারো কারো চোখ বেয়ে পানি ঝরছিল। ফখরুলের বক্তব্যে চলে আসে মাহমুদুর রহমানের বিদূষী স্ত্রী ফিরোজা মাহমুদ এবং তার রত্মগর্ভা মায়ের কথাও। ‘আমি দেখেছি ভাবী এতটুকু ভেঙে পড়েননি, মাহমুদ ভাইকে সাহস যুগিয়ে চলেছেন। তার মাও তাকে সাহস দিচ্ছেন।’ ‘প্রতি শুক্রবার সকাল ১০টায় ভাবী আর তার মা কাশিমপুর কারাগারে যান মাহমুদ ভাই’র সাথে দেখা করতে। আমি দেখেছি সেদিন খুব সকালে উঠে মাহমুদ ভাই গোসল সেরে ভালো পোশাক পরে কারাগারের বাগান থেকে ফুল তুলে নিয়ে আসতেন। এরপর ভাবী আর তার মা এলে তিনি তাদের ফুল দিয়ে শুভেচ্ছা জানাতেন।’ ‘একটা মানুষের মনে কত সাহস থাকলে এরকম বিপজ্জনক পরিবেশেও ফুলের প্রতি ভালোবাসা অটুট রাখতে পারে- তা ভাবলে অবাক হয়ে যাই,’ বলেন ফখরুল। সভায় মির্জা ফখরুল অবিলম্বে মাহমুদুর রহমান মুক্তি দাবি করেন। পাশাপাশি তিনি জাতীয় প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি শওকত মাহমুদ এবং অন্যান্য রাজবন্দিদের মুক্তিও দাবি করেন।

এই সাইটে নিজম্ব নিউজ তৈরির পাশাপাশি বিভিন্ন নিউজ সাইট থেকে খবর সংগ্রহ করে সংশ্লিষ্ট সূত্রসহ প্রকাশ করে থাকি। তাই কোন খবর নিয়ে আপত্তি বা অভিযোগ থাকলে সংশ্লিষ্ট নিউজ সাইটের কর্তৃপক্ষের সাথে যোগাযোগ করার অনুরোধ রইলো।বিনা অনুমতিতে এই সাইটের সংবাদ, আলোকচিত্র অডিও ও ভিডিও ব্যবহার করা বেআইনি।