ঢাকাFriday , 5 February 2016
  1. অপরাধ
  2. অর্থনীতি
  3. আইন ও আদালত
  4. আন্তর্জাতিক
  5. এক্সক্লুসিভ
  6. করোনা আপডেট
  7. খুলনা
  8. খেলাধুলা
  9. গণমাধ্যম
  10. চট্টগ্রাম
  11. জাতীয়
  12. ঢাকা
  13. তথ্য-প্রযুক্তি
  14. প্রচ্ছদ
  15. প্রবাসে বাংলাদেশ

বাতিল হচ্ছে সরকারী বিএম কলেজ ছাত্র কর্মপরিষদ নামে অবৈধ কমিটি

Link Copied!

বাতিল করা হচ্ছে সরকারী বিএম কলেজের ছাত্র কর্ম পরিষদের অবৈধ কমিটি। এছাড়া বরিশাল বিএম কলেজে সকল ধরনের সভা-সমাবেশ ও মিছিল নিষিদ্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। বিএম কলেজ ছাত্রলীগ নেতা ফয়সাল আহমেদ মুন্নার ওপর সন্ত্রাসী হামলার ঘটনায় জরুরী সভায় এ সিদ্ধান্তের খবর জানায় কলেজের শিক্ষক পরিষদ। গতকাল বৃহস্পতিবার বেলা সাড়ে ১১টায় কলেজের শিক্ষক মিলনায়তন কেন্দ্রে ওই সভা শুরু হয়ে দুপুর ২টা পর্যন্ত চলে। সভায় কলেজের বর্তমান পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে রাখতে কলেজে স্থায়ীভাবে পুলিশ ক্যাম্প করারও সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। স্থগিত করা হয় ছাত্রলীগের কার্যক্রম। এরপরপরই কলেজের অস্থায়ী ছাত্র কর্মপরিষদ বাতিলের বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেবার জন্য পাঁচ সদস্য বিশিষ্ট একটি কমিটি করা হয়েছে। যার প্রধান করা হয়েছে ব্যবস্থাপনা বিভাগের প্রধান অধ্যাপক শাহ্ সাজেদাকে। আগামী ৫ কর্ম দিবসের মধ্যে ওই কমিটি কর্মপরিষদ বাতিলের বিষয়ে সকল কর্মপ্রক্রিয়া সম্পন্ন করবে। গত দুই দিন যাবৎ বিএম কলেজে ছাত্রলীগের দুই গ্রুপের মধ্যে চরম উত্তেজনাকর পরিস্থিতিতে মহানগর ছাত্রলীগ এক বিবৃতিতে বিএম কলেজ ছাত্রলীগের সকল কার্যক্রম স্থগিত করে । এমন বিষয় নিশ্চিত করেছেন মহানগর ছাত্রলীগ সভাপতি জসীম উদ্দিন। সরকারি বিএম কলেজ শিক্ষক পরিষদ সাধারন সম্পাদক এ এস কাইউম উদ্দিন আহমেদ বলেন, ফয়সাল আহমেদ মুন্নার ওপর হামলার ঘটনা অনাকাঙ্খিত। আর এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে ঘটে যাওয়া সকল ঘটনা উদ্বেগ জনক। তাই বিষয়টি নিয়ে শিক্ষক পরিষদের জরুরী সভা হয়েছে। সভায় কলেজের আইনশৃঙ্খলা নিয়ন্ত্রনে রাখতে পুলিশ ক্যাম্প, সভা-সমাবেশ মিছিলে নিষেধাজ্ঞা ও অস্থায়ী কর্মপরিষদ বাতিলে একটি কমিটি করা হয়। ওই কমিটি স্থানীয় প্রশাসন, রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ ও সুশীল সমাজের নেতৃবৃন্দেকে বর্তমান পরিস্থিতি অবহিত করে কর্মপরিষদ বাতিল করার সকল প্রক্রিয়া সম্পন্ন করবে। এরপর কলেজ অধ্যক্ষ তা বাতিল করবেন। ২০১১ সালের ২০ জুন ছাত্র সংগঠনগুলোর তীব্র আপত্তির পরও বাকসুর বিকল্প হিসাবে গঠন করা হয় বিএম কলেজ ছাত্র কর্ম পরিষদ কমিটি। সেসময় তরিঘড়ি করে সংবিধান সংশোধন করে ছাত্রলীগ ক্যাডারদের নিয়ে বিকল্প ছাত্রকর্ম পরিষদ গঠন করেন বিএম কলেজের তৎকালীন অধ্যক্ষ ড. ননী গোপাল দাস। স্টাফ কাউন্সিলের জরুরী সভায় ২৬ সদস্য বিশিষ্ট কমিটি গঠনের সাথে সাথেই শপথ বাক্য পাঠ করানো হয় তাদের। সেসময় অনেকেই এ কর্মপরিষদের কমিটি প্রত্যাখ্যান করলেও তা কোন কাজে আসেনি। তবে এ কমিটি ৩ মাসের জন্য অস্থায়ী ভাবে গঠন করা হলেও শেষ পর্যন্ত এ কমিটি দীর্ঘ ৪ বছর পার করলেও স্থায়ীত্বর মুখ দেখেনি বিএম কলেজ ছাত্র কর্ম পরিষদ। কমিটি গঠনের পর থেকেই নানা ধরনের বিতর্ক উঠে কর্ম পরিষদের নেতাদের বিরুদ্ধে। কলেজে অধ্যক্ষ পদে যোগদান করতে আসা প্রফেসর শংকর চন্দ্র দত্তকে সে সময় নিজেদের স্বার্থ হাসিলের জন্য মারধর করে কর্ম পরিষদের নেতারা। এসময় সারা দেশ ব্যাপী নিন্দার ঝড় উঠলেও এ কমিটি স্থায়ী করার কোন উদ্যোগ ছিলনা কলেজ কতৃপক্ষের। সর্বশেষ অস্থায়ী বিএম কলেজ ছাত্র কর্ম পরিষদের ক্রীড়া সম্পাদক ফয়সাল আহম্মেদ মুন্নাকে নগরীর বৈদ্যপাড়ার মুখে বসে দুবৃত্তরা কুপিয়ে জখম করার পর কলেজের ছাত্র কর্ম পরিষদ বাতিলের জন্য পদক্ষেপ গ্রহণ করে কলেজ প্রশাসন। এছাড়া পরবর্তী নির্দেশনা না দেওয়া পর্যন্ত মিছিল, সভা-সমাবেশও নিষিদ্ধ ঘোষণা করা হয়। এ বিষয়ে বিএম কলেজের অধ্যক্ষ স. ম ইমানুল হাকিম জানিয়েছেন, শিক্ষক পরিষদের জরুরী সভায় ৫ দিনের মধ্যে বিএম কলেজ ছাত্র কর্ম পরিষদের কমিটি বাতিলের জন্য কমিটি গঠন করা হয়েছে। সে মোতাবেক ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

এই সাইটে নিজম্ব নিউজ তৈরির পাশাপাশি বিভিন্ন নিউজ সাইট থেকে খবর সংগ্রহ করে সংশ্লিষ্ট সূত্রসহ প্রকাশ করে থাকি। তাই কোন খবর নিয়ে আপত্তি বা অভিযোগ থাকলে সংশ্লিষ্ট নিউজ সাইটের কর্তৃপক্ষের সাথে যোগাযোগ করার অনুরোধ রইলো।বিনা অনুমতিতে এই সাইটের সংবাদ, আলোকচিত্র অডিও ও ভিডিও ব্যবহার করা বেআইনি।