Home » অন্যান্য » জিম্বাবুয়ের ওপর আধিপত্য খাটাতে চান সাকিব

জিম্বাবুয়ের ওপর আধিপত্য খাটাতে চান সাকিব

বাংলার কন্ঠস্বর প্রতিবেদক : উড়ন্ত একটা বছর পার করছে বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট দল। যেখানে ভারত, পাকিস্তান ও দক্ষিণ আফ্রিকার মতো দলের বিপক্ষে ওয়ানডে সিরিজ জয়ের রোমাঞ্চকর অভিজ্ঞতা রয়েছে। ইংল্যান্ডের মতো দলকে হারিয়ে বিশ্বকাপের কোয়ার্টার ফাইনালে খেলার মধ্য দিয়ে বাংলাদেশের এই যাত্রা শুরু হয়েছিল। যা অব্যাহত থেকেছে পরবর্তী সময়েও।

এবার সীমিত ওভার ক্রিকেট খেলতে বাংলাদেশ সফরে এসেছে জিম্বাবুয়ে। ঘরের মাটিতে বিশ্বের সেরা দলগুলোকে হারানোর পর তুলনামূলক দুর্বল প্রতিপক্ষ হিসেবে জিম্বাবুয়েকে পাচ্ছে টাইগাররা। এবার তাই শুধু জয় নয়, জিম্বাবুয়ের উপর আধিপত্যই খাটাতে চান বাংলাদেশের বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসান। সোমবার মিরপুর শের-ই-বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে অনুশীলন শেষে এমন প্রত্যয়ই ব্যক্ত করেছেন সাকিব।

কোচ হাথুরুসিংহের অধীনে দুপুর ২টা থেকে সূর্য ডোবার পরও অবিরত চলেছে জাতীয় দলের অনুশীলন। তবে শারীরিক কসরতমূলক নয়, অনুশীলন হয়েছে ব্যাট-বল নিয়ে। একে একে বল করেছেন আল-আমিন, মুস্তাফিজ, মাশরাফি, রাব্বি, আরাফাত সানিরা। আর সেসব বলে ব্যাটিং দক্ষতার স্বাক্ষর রাখার চেষ্টা করেছেন মুশফিক-তামিমরা। ব্যাট বলের অনুশীলন শেষে শিষ্যদের ফিল্ডিং প্র্যাকটিসও করিয়েছেন কোচ চন্ডিকা হাথুরুসিংহে। সব মিলিয়ে দিনের শেষ বেলাটা মাঠেই কেটেছে ক্রিকেটারদের।

অনুশীলন শেষে জিম্বাবুয়ে সিরিজ নিয়ে নিজের অনুভূতির কথা তুলে ধরেছেন সাকিব। খুব শিগগিরই মেয়ের বাবা হতে যাচ্ছেন এই অলরাউন্ডার। জীবনের এমন আনন্দঘন মুহূর্তেও স্ত্রী-সন্তান রেখে সাকিবকে নামতে হয়েছে অনুশীলনে, দল ও দেশের স্বার্থে। মূলত স্ত্রীর আগ্রহেই তিনি খেলছেন সিরিজে। আপাতত সন্তানসম্ভবা স্ত্রী শিশির সুস্থ থাকায় খুব বেশি চিন্তা নেই সাকিবের। যেভাবে তারিখ দিয়েছেন চিকিৎসক, তাতে সিরিজ শেষ করে নতুন অতিথির আগমনের সময় ভালভাবেই স্ত্রীর পাশে থাকতে পারবেন বলে মনে করছেন তিনি। তবে প্রয়োজন হলে যে কোনো মুহূর্তে চলে যাবেন পরিবারের কাছে। সেক্ষেত্রে দুই-একটা ম্যাচ মিস হলেও তাতে সমস্যা দেখছেন না সাকিব।

সাকিব বলেছেন, ‘স্ত্রীর কথায় খেলতে এসেছি। ফোনে সব সময়তো কথাবার্তা হচ্ছে, খোঁজ নিচ্ছি। আশা করছি, খুব বেশি সমস্যা হবে না। আমার স্ত্রী বলেছে, তুমি বাসায় বসে টেলিভিশনে ক্রিকেট খেলা দেখলে যে মন খারাপ থাকবে, তার চেয়ে খেলতে যাওয়াই ভাল। তাই এসেছি। তবে খুব বেশি প্রয়োজন হলে দুই-একটা ম্যাচ মিস করেও চলে যেতে পারব। আমার মনে হয় তাতে কোনো সমস্যা হবে না।’

জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে ৩টি ওয়ানডে ও ২টি টোয়েন্টি২০ ম্যাচকে সামনে রেখে জাতীয় দলের ক্রিকেটারদের অনুশীলন শুরু হয়েছে গত ২৯ অক্টোবর। এর মধ্যে রবিবার প্রথম ‍দুটি ওয়ানডে ম্যাচের জন্য চূড়ান্ত দল ঘোষণা করা হয়েছে। ছুটি নিয়ে সন্তান সম্ভবা স্ত্রীর পাশে থাকতে যুক্তরাষ্ট্রে চলে গিয়েছিলেন সাকিব। তবে সিরিজের কারণে তাকে ফিরে আসতে হয়েছে। সাকিব অনুশীলনে যোগ দিয়েছেন সোমবারই। অনুশীলনে যোগ দিয়েই শুনিয়েছেন আশার বাণী।

অস্ট্রেলিয়া দল বাংলাদেশে নির্ধারিত সফর বাতিল করেছে গত সেপ্টেম্বরে। এরপর খেলার শূন্যতা কাটাতে তড়িঘড়ি করে জিম্বাবুয়েকে নিয়ে এসেছে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি)। শূন্যতা পূরণের এই সিরিজে জিম্বাবুয়ে খেলতে আসায় তাদের ধন্যবাদ জানিয়েছেন সাকিব। সফরের জন্য ধন্যবাদ জানালেও খেলায় ছাড় দেওয়া তো দূরে থাক, জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে ২২ গজের লড়াইয়ে রীতিমতো আধিপত্য খাটাতে চান তিনি। আফগানিস্তানের কাছে নাকানি-চুবানি খেয়ে আসা জিম্বাবুয়েকে সাকিব দেখছেন বাংলাদেশের তুলনায় ছোট সারির দল হিসেবে।

তিনি বলেছেন, ‘ছোট দলগুলোর বিপক্ষে বড় দলগুলো যেভাবে খেলে, জিম্বাবুয়েকে আমরা সেভাবেই খেলতে চাই। তাই আমরা চেষ্টা করব শুধু জয় নয়, ডোমিনেট করে খেলার। এই সিরিজে সাফল্য পেলে দারুণ একটা বছর কাটবে আমাদের।’

দুর্দান্ত এক সিরিজ উপহার দিতেই প্রস্তুত হচ্ছেন সাকিব-মাশরাফিরা। জিম্বাবুয়ে দল সোমবারই এসেছে ঢাকায়। মঙ্গলবার নেমে পরবে অনুশীলনে। আর মাঠের লড়াই শুরু হবে আগামী ৭ নভেম্বর। সেখানেই প্রমাণ মিলবে সাকিবদের আত্মবিশ্বাসের সঙ্গে মাঠে ব্যাট-বলের লড়াইয়ে বাস্তবতার মিল রয়েছে কতটুকু।

 

পাঠকের মতামত...

Print Friendly, PDF & Email
Total Page Visits: 59 - Today Page Visits: 1

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*