Home » অন্যান্য » যৌথ প্রযোজনার নামে প্রতারণা কলকাতার প্রযোজকের বিরুদ্ধে মামলা

যৌথ প্রযোজনার নামে প্রতারণা কলকাতার প্রযোজকের বিরুদ্ধে মামলা

স্টাফ রিপোর্টার : স্বাধীনতা পরবর্তী সময়ে বাংলাদেশের প্রেক্ষাগৃহে বাণিজ্যিকভাবে উপমহাদেশীয় ভাষার চলচ্চিত্র প্রদর্শনে নিষেধাজ্ঞা জারি করেছিলেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। তখন যৌথ প্রযোজনায় সিনেমা নির্মাণের অনুমতি দেওয়া হয়। তবে যৌথ প্রযোজনার সিনেমা দুই দেশের সমানসংখ্যক শিল্পীর অংশগ্রহণ থাকবে এবং সেন্সর বোর্ডের অনুমতি নিয়ে প্রদর্শন হবে— এমন শর্তও ‍জুড়ে দেওয়া হয়।

সেই ধারাবাহিকতায় ‘তিতাস একটি নদীর নাম’, ‘পদ্মা নদীর মাঝি’, ‘মনের মানুষ’র মতো সিনেমা যৌথ প্রযোজনায় নির্মিত হতে দেখা গেছে। কিন্তু সাম্প্রতিক সময়ে বাণিজ্যিকভাবে যৌথ প্রযোজনার সিনেমা নির্মাণের হিড়িক পড়েছে। বাংলাদেশের অনেক নির্মাতা কলকাতার সিনেমা প্রযোজনা সংস্থাগুলোর সঙ্গে যোগাযোগ বাড়ানোর প্রতিযোগিতায় নেমেছেন। এই সুযোগে কলকাতার সিনেমা প্রযোজনা প্রতিষ্ঠানগুলো তাদের সিনেমাকেই যৌথ প্রযোজনার নামে নির্মাণ করছে। দেখা গেছে, বেশিরভাগ শিল্পীই তাদের থাকছেন। নামমাত্র দু-একজন বাংলাদেশী শিল্পীকে নিয়ে সেটিকে যৌথ প্রযোজনার সিনেমা বলে নির্মাণ করছেন এবং পরোক্ষভাবে কলকাতার সিনেমাকেই যৌথ প্রযোজনার নামে বাংলাদেশের প্রদর্শন করছেন।

গত এক বছরে যে কয়েকটি যৌথ প্রযোজনার সিনেমা নির্মিত হয়েছে তার সবগুলোতেই রয়েছে কলকাতার নায়ক বাংলাদেশের নায়িকা। বিষয়টি নিয়ে বাংলাদেশের গণমাধ্যমে অনেকগুলো প্রতিবেদন প্রকাশ হয়েছে। কিন্তু এই বিষয়ে ঢাকাই সিনেমার সঙ্গে সংশ্লিষ্টরা তেমন মুখ খুলেননি। এবার বাংলাদেশী একজন সিনেমার প্রযোজক কলকাতার সিনেমার প্রযোজকের বিরুদ্ধে চুক্তিভঙ্গের অভিযোগ এনে মামলা করেছেন।

বাংলাদেশ ও কলকাতার দুই প্রযোজকের যৌথ উদ্যোগে নির্মিত ‘ব্ল্যাক’ ছবিটির কলকাতায় প্রদর্শন বন্ধ করার দাবিতে গত শুক্রবার কলকাতা হাইকোর্টে একটি মামলা দায়ের করেন এই ছবির বাংলাদেশের প্রযোজক কামাল মোহাম্মদ কিবরিয়া লিপু।

বাংলাদেশী প্রযোজক লিপুর অভিযোগ, চুক্তি ভঙ্গ করে এ মাসেই কলকাতার শতাধিক প্রেক্ষাগৃহে মুক্তি দেওয়া হয়েছে ‘ব্ল্যাক’। বাংলাদেশে সিনেমাটির মুক্তি পাবে ৪ ডিসেম্বর। কিন্তু এর এক সপ্তাহ আগেই কলকাতায় সিনেমাটি মুক্তি দিয়েছে কলকাতার প্রযোজনা সংস্থা দাগ ক্রিয়েটিভ মিডিয়া লিমিটেড। চুক্তি ভঙ্গ করায় সিনেমাটির প্রদর্শনের ওপর স্থগিতাদেশ চাইছেন বাংলাদেশী প্রযোজক।

বাংলাদেশী প্রযোজকের অভিযোগ, কলকাতায় সিনেমাটি আগে মুক্তি দেওয়ায় আর্থিক ক্ষতির সম্মুখীন হচ্ছেন তিনি। তাই তারা কলকাতার প্রদর্শন বন্ধ রেখে একযোগে দুই দেশে ছবি মুক্তির আরজি জানান।

এদিকে কলকাতার হাইকোর্টের বিচারপতি সৌমেন সেন ‘ব্ল্যাক’ ছবিটি প্রদর্শনের ওপর স্থগিতাদেশ দিতে সম্মত হননি। এর পরবর্তী শুনানি চার সপ্তাহ পরে অনুষ্ঠিত হবে। এই মামলার পরবর্তী শুনানি হওয়া পর্যন্ত এই প্রদর্শনীর টিকিট বিক্রির অর্থ কলকাতার প্রযোজনা সংস্থাকে ব্যাংকে জমা রাখতে হবে বলে আদালত থেকে বলা হয়। পরবর্তী শুনানির শেষে বিচারক এ সংক্রান্ত রায় দেবেন।

ঢাকায় সিনেমাটি মুক্তি নিয়ে সেন্সর জটিলতা থাকায় সিনেমাটি মুক্তিতে বিলম্ব হয়েছে। এরই মধ্যে সেন্সর বোর্ড থেকে ছাড়পত্র দেওয়া হয়েছে। আগামী ৪ ডিসেম্বর বাংলাদেশে মুক্তি পাচ্ছে ঢাকার অভিনেত্রী মিম ও কলকাতার নায়ক সোহম অভিনীত যৌথ প্রযোজনার চলচ্চিত্র ‘ব্ল্যাক’।

 

পাঠকের মতামত...

Print Friendly, PDF & Email
Total Page Visits: 135 - Today Page Visits: 1

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*