Home » অন্যান্য » ১৪৫ রানের জয়ে দারুণ সূচনা বাংলাদেশের

১৪৫ রানের জয়ে দারুণ সূচনা বাংলাদেশের

বাংলার কন্ঠস্বর প্রতিবেদক :সিরিজের প্রথম ওয়ানডেতে সফরকারী জিম্বাবুয়েকে হারিয়ে শুভসূচনা করেছে স্বাগতিক বাংলাদেশ। স্বাগতিকদের ২৭৪ রানের লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে সাকিব আল হাসানের ঘূর্ণিজালে জিম্বাবুয়ের ইনিংস থেমে গিয়েছে ১২৮ রানে। দিবারাত্রির এই ম্যাচে মুশফিকের সেঞ্চুরির দিনে বাংলাদেশ জিতেছে ১৪৫ রানের বড় ব্যবধানে।

ইনিংসের ৩৬.১ ওভারে ১২৮ রানে ৯ উইকেট হারিয়ে ফেলেছিল জিম্বাবুয়ে। তবে উইকেটরক্ষক মুজারাবানি ফিল্ডিংয়ের সময় পাঁয়ে চোট পাওয়ায় আর মাঠে নামতে পারেননি। ফলে এখানে শেষ হয়েছে জিম্বাবুয়ের ইনিংস।

জিম্বাবুয়ের ইনিংসের পুরোটা জুড়েই আধিপত্য বজায় রেখেছিলেন বাংলাদেশী বোলাররা। সাকিব, মাশরাফিদের নিয়ন্ত্রিত ও দাপুটে বোলিংয়ে বড় কোনো জুটি দাঁড় করাতে পারেনি সফরকারীরা। এর মধ্যে সাকিব আল হাসানের বোলিং তোপে পড়ে সাজঘরে ফিরেছেন ৫ জিম্বাবুয়ে ব্যাটসম্যান। ওয়ানডে ক্যারিয়ারে এবারই প্রথম ৫ উইকেটের মাইলফলক স্পর্শ করলেন বিশ্বসেরা এ অলরাউন্ডার। এ ছাড়া ইনজুরি সেরে মাঠে ফেরা অধিনায়ক মাশরাফি ২টি, দীর্ঘদিন পর জাতীয় দলে ফেরা পেসার আল-আমিন হোসেন ও নাসির হোসেন ১টি করে উইকেট নিয়েছেন।

অন্যদিকে ব্যাটসম্যানদের আসা-যাওয়ার মধ্যে কেউই তেমন প্রতিরোধ গড়ে তুলতে না পারলেও এক প্রান্ত আগলে রেখেছিলেন এলটন চিগাম্বুরা। তবে ৩৭তম ওভারের প্রথম বলে তার প্রতিরোধও গুঁড়িয়ে দিয়েছেন নাসির হোসেন। নাসিরের বলে এলবিডব্লিউ হওয়ার আগে ৫১ বলে ২ চারে ৪১ রান করেছেন চিগাম্বুরা।

এর আগে মুশফিকের দাপুটে সেঞ্চুরিতে ২৭৩ রানের বড় সংগ্রহ গড়লেও শুরুটা ভাল হয়নি বাংলাদেশের। টসে হেরে ব্যাট করতে নামা বাংলাদেশ দ্বিতীয় ওভারের শেষ বলে দলীয় ২ রানে হারিয়েছিল ওপেনার লিটনকে। পরে ব্যাট করতে নেমে মাহমুদুল্লাহ রিয়াদও ফিরে গেছেন ব্যক্তিগত ৯ রানে। মাত্র ৩০ রানে ২ উইকেট হারানো বাংলাদেশের ইনিংসে হাল ধরেছেন তামিম ইকবাল ও মুশফিকুর রহিম। দলীয় ১০০ রানে সিকান্দার রাজার বলে লুক জোঙ্গউইর তালুবন্দী হয়ে ব্যক্তিগত ৪০ রানে তামিম মাঠ ছাড়লেও অন্য প্রান্ত আগলে রেখেছেন মুশফিক। সিকান্দার রাজার বলে ১৬ রানে সাকিব বিদায় নেওয়ার পর সাব্বির রহমানের সাথে জুটি গড়েছেন মুশফিক। ব্যাটসম্যানদের আসা-যাওয়ার মিছিলেও ঝলমলে এক সেঞ্চুরিতে বাংলাদেশকে বড় সংগ্রহ এনে দিয়েছেনেএই ডানহাতি ব্যাটসম্যান। ক্রেমারের থ্রোতে রান আউট হয়ে সাজঘরে যাওয়ার আগে করেছেন ১০৭ রান। ১০৯ বলের ইনিংসটি সাজিয়েছেন তিনি ৯ চার ও ১ ছয়ে।ইনিংসটি খেলার পথে মুশফিক আন্তর্জাতিক ক্রিকেটের তিন ফরম্যাট (ওয়ানডে, টেস্ট ও টি টোয়েন্টি) মিলিয়ে তৃতীয় বাংলাদেশি হিসেবে ৭ হাজার রানের মাইলফলক স্পর্শ করেছেন।

মুশফিক ছাড়া বাংলাদেশের ইনিংসে হাফসেঞ্চুরির দেখা পেয়েছেন সাব্বির রহমানও। ৫৮ বলে ৫৭ রানের ইনিংসটিতে ৪টি চার ও ২টি ছক্কা হাঁকিয়েছেন তিনি। এ ছাড়া অধিনায়ক মাশরাফি বিন মর্তুজার ১৪ রান ও আরাফাত সানির ১৫ রানে ৫০ ওভার শেষে বাংলাদেশ ৯ উইকেটে ২৭৩ রান স্পর্শ করেছিল।

এদিকে ১৪৫ রানের জয়টি ওয়ানডে ক্রিকেটে বাংলাদেশের সবচেয়ে বেশি রানে জয়ের তালিকায় তৃতীয়। এর আগে ২০১২ সালে খুলনায় ওয়েস্ট ইন্ডিজকে ১৬০ রানে ও ২০০৬ সালে ঢাকায় স্কটল্যান্ডকে ১৪৬ রানে হারিয়েছিল টাইগাররা। তবে জিম্বাবুয়ের বিরুদ্ধে এটিই বাংলাদেশের সবচেয়ে বেশি রানের জয়। এর আগে ২০১৪ সালে ঢাকায় ১২৪ রানে জিম্বাবুয়েকে হারিয়েছিল বাংলাদেশ।

রান ব্যবধানে বাংলাদেশের সেরা ৫ জয়
জয় ব্যবধান টার্গেট প্রতিপক্ষ ভেন্যু সাল
১৬০ ২৯৩ ওয়েস্ট ইন্ডিজ খুলনা ২০১২
১৪৬ ২৭৯ স্কটল্যান্ড ঢাকা ২০০৬
১৪৫ ২৭৪ জিম্বাবুয়ে ঢাকা ২০১৫
১৩১ ৩০২ কেনিয়া বগুড়া ২০০৬
১২৪ ২৯৮ জিম্বাবুয়ে ঢাকা ২০১৪

 

পাঠকের মতামত...

Print Friendly, PDF & Email
Total Page Visits: 65 - Today Page Visits: 1

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*