Home » বরিশাল » ঝালকাঠিতে শিক্ষার্থীকে আটকে রেখে নির্যাতন: প্রতিবাদে ভাংচুর

ঝালকাঠিতে শিক্ষার্থীকে আটকে রেখে নির্যাতন: প্রতিবাদে ভাংচুর

ঝালকাঠি প্রতিনিধি : ঝালকাঠির ঐতিহ্যবাহী নেছারাবাদ কামিল মাদ্রাসার প্রশাসনিক ভবন ও ছাত্রাবাসে হামলা চালিয়ে দরজা ও জানালা ভাংচুর করেছে দাখিল পরীক্ষার্থীরা। এক শিক্ষার্থীকে আটকে রেখে নির্যাতনের প্রতিবাদে গত শুক্রবার গভীর রাতে এ হামলা ও ভাংচুরের ঘটনা ঘটেছে বলে অভিযোগ পাওয়াগেছে। প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, ছাত্রাবাসে এবং শ্রেনী কক্ষে মোবাইল ফোন ব্যবহার নিষিদ্ধ করে মাদ্রাসা কর্তৃপক্ষ। এর পরেও অটেকে লুকিয়ে মোবাইল ফোন ব্যাবহার করে। শুক্রবার রাত ১১টার দিকে আরবি শিক্ষক তাজুল ইসলাম দাখিল পরীক্ষার্থীদের একটি কক্ষে প্রবেশ করেন। ওই শিক্ষক মোবাইল ফোন জব্ধ করতে এসেছেন, ভেবে শিক্ষার্থীরা আতঙ্কিত হয়ে পড়ে। এসময় ওই শিক্ষক দাখিল পরীক্ষার্থী আবদুস সাকুরকে আটক করে একটি কক্ষে আটকে রাখেন। পরে শিক্ষকরা এসে ওই ছাত্রকে নির্যাতন মারধর করে। আহত ওই ছাত্র তার সহপাঠিদের সহযোগীতায় স্থানীয় ভাবে চিকিৎসা নিয়েছে। এ খবর পেয়ে তাঁর সহপাঠিরা একত্রিত হয়ে বিক্ষোভ প্রদর্শন করে। বিক্ষুব্ধ শিক্ষার্থীরা মাদ্রাসার প্রশাসনিক ও আবাসিক ভবনের প্রথম দ্বিতীয় এবং তৃতীয় তলায় ব্যাপক ভাংচুর চালায়। খরব পেয়ে পুলিশ গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। এ ঘটনায় মাদ্রাসা কর্তৃপক্ষ তিন সদস্য বিশিষ্ট একটি তদন্ত কমিটি গঠন করেছে বলে জানিয়েছেন অধ্যক্ষ খলিলুর রহমান। শিক্ষার্থীদের অভিযোগ, নেছারাবাদ কমপ্লেক্স ট্রাস্টের নির্বাহী কর্মকর্তা শহীদুল ইসলাম ও কয়েকজন শিক্ষকের বিরুদ্ধে ছাত্র নির্যাতনসহ নানা অনিয়মের অভিযোগ রয়েছে। সম্প্রতি দাখিল পরীক্ষার ফরম পূরণে শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে অতিরিক্ত ফি আদায় করেছে মাদ্রাসা কর্তৃপক্ষ। এসব কারণে ক্ষুব্ধ ছিল শিক্ষার্থীরা। ঝালকাঠি থানার উপপরিদর্শক আবদুল হালিম তালুকদার জানান, বর্তমানে মাদ্রাসার পরিস্থিতি স্বাভাবিক রয়েছে, এ ব্যাপারে খানায় কোন অভিযোগ দায়ের করা হয়নি। অভিযোগপেলে আইনানুগ ব্যাবস্থা নেয়া হবে বলেও জানান তিনি।

পাঠকের মতামত...

Print Friendly, PDF & Email
Total Page Visits: 107 - Today Page Visits: 1

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*