Home » স্বাস্থ্য » দেশে ঘাতক ব্যাধি হৃদরোগের প্রকোপ বেড়েই চলেছে

দেশে ঘাতক ব্যাধি হৃদরোগের প্রকোপ বেড়েই চলেছে

নিজস্ব প্রতিবেদক ॥ অতীতের সমস্ত রোগের রের্কড ছারিয়ে দেশে এখন নিরব ঘাতক হিসাবে মহামারী রূপ নিচ্ছে হৃদরোগ।এখন হৃদরোগে শিশু আবাল বৃদ্ব বনীতা সবাই কম বেশি আক্রান্ত হচ্ছে। এ রোগের চিকিৎসা ও বেশ ব্যয়বহুল বলে জানা গেছে। বিশেষজ্ঞদের মতে এ সংখ্যা মোট জনসংখ্যার প্রায় ২০ শতাংশ । স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের হেলথ বুলেটিন থেকে জানা যায়, হাসপাতালে এখন হৃদরোগের কারনেই সবার্ধিক রোগীর মৃত্যু হয়। আর্শ্চাযের বিষয় হচ্ছে এ রোগে বড়দের সাথে শিশুরা ও সমান তালে আক্রান্ত হচ্ছে। বে- সরকারী জরিপে হৃদরোগে আক্রান্ত শিশুর সংখ্যা বর্তমানে তিন লাখের ও বেশি। অবশ্য বিশেষজ্ঞরা অতিমাত্রায় তেল ও চর্বি জাতীয় খাদ্য গ্রহন কে হৃদরোগের প্রধান কারন মনে করেন। ঢাকা ন্যাশনাল হার্টফাউন্ডেশনের তথ্য মতে প্রতি হাজারে একজন শিশু জন্মগত ভাবে হৃদরোগ নিয়ে জন্মাচ্ছে। চিকিৎসকদের মতে ধূমপান, উচ্চমাত্রার ক্যালরী গ্রহণ, উচ্চ রক্তচাপ, ফাষ্টফুড, ফরমালিন যুক্ত খাদ্য গ্রহণ, শরীর চর্চার অভ্যাস না থাকা, দুঃশ্চিন্তা সহ নানাবিধ কারনে হৃদরোগ বেড়ে চলেছে। এ ছারা খোজ নিয়ে জানা গেছে জাতীয় হৃদরোগ ইনষ্টিটিউট ও হাসপাতালে রোগীর ধারন ক্ষমতার চেয়ে ভর্তীকৃত হৃদরোগীর সংখ্যা অনেক বেশি। তাছারা ন্যাশনাল হার্ট ফাউন্ডেশন মিরপুর-২ এ ৫ মিনিটে এ্যাম্বুলেন্সে অসুস্থ্য হৃদরোগী আসছে কখনো আবার লাশ হয়ে ফেরত যাচ্ছে। যোগাযোগ করলে বরিশালের শেবাচিমের পরিচালক ডাঃ এস এম সিরাজুল ইসলাম বলেন, এনজিওগ্রাম বরিশালে হচ্ছে। এখন আমাদের এখানে রিং বসানো ও হচ্ছে। এ পর্যন্ত একশত জন রোগীর মতো রিং বসানো হয়েছে।ফেব্রুয়ারী মাসের মধ্যে এখানে আইসিও বসানোর প্রসেসিং চলছে। এ ব্যাপারে মুঠোফোনে যোগাযোগ করে জানাগেছে, ঢাকায় মিরপুর-২ এ ন্যাশনাল হার্ট ফাউন্ডেশনে ৩ দিন একজন রোগীর থাকা,খাওয়া, ঔষধ পাথেয় সহ এনজিওগ্রাম করতে পুরো প্যাকেজ ১৩ হাজার প্লাস খরচ হয়। অনান্য প্রাইভেট ক্লিনিকে আরো বেশি। যা কিনা গরীব রোগীদের বেলায় যথেষ্ট কষ্টসাধ্য। তাছাড়া রোগীর অবস্থা বুঝে ব্যবস্থা নিতে রয়েছে কাড়িকাড়ি অর্থের প্রয়োজন। হার্টে ব্লক হলে রোগীকে রিং বসাতে হয় কিংবা বাইপাস করা হয়। রিং এর মধ্যে ইন্ডিয়ান ,ইউ,এস,এ কিংবা ইউরোপের একটির এক যার এক রকমের দাম। এ ব্যাপারে সরাসরি আলাপকালে ঢাকা মিরপুরের ন্যাশনাল হার্ট ফাউন্ডেশন হাসপাতাল এন্ড রিসার্স ইনষ্টিটিউট এর তথ্য অনুযায়ী, হৃদরোগ এখন মহামারী আকারে দেখা যাচ্ছে। এর চিকিৎসা ও ব্যয় বহুল। ইউএসএর তৈরী ২ টি রিং বসাতে একজন রোগীর প্রায় ৩ লক্ষ টাকা এবং ইউরোপের তৈরী ২ টি রিং বসাতে প্রায় ২ লক্ষ ৮০ হাজার টাকা একজন রোগীর ব্যয় হচ্ছে। যা আমাদের দেশের সাধারন মানুষের কাছে কষ্ট সাধ্য।

পাঠকের মতামত...

Print Friendly, PDF & Email
Total Page Visits: 58 - Today Page Visits: 1

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*