Home » অপরাধ » র‌্যাবের অভিযানে ২০ লক্ষ টাকার নকল ঔষধ সহ আটক ২

র‌্যাবের অভিযানে ২০ লক্ষ টাকার নকল ঔষধ সহ আটক ২

বাংলার কন্ঠস্বরঃ রাজধানীর বনানীতে ড্রীম টুগেদার লিমিটেড কারখানা থেকে বিপুল পরিমান অনুমদনহীন ভেজাল ঔষধ এবং কসমেটিক্স সহ মালিক ম্যানেজারকে আটক করে র‌্যাব-২ যার বাজার মূল্য প্রায় ২০ লক্ষ টাকা এবং সাথে থাকা ভ্রাম্যমান আদালত তাদেরকে ৬ লক্ষটাকাজরিমানা করেন। ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা করেন র‌্যাবের নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট জনাব মো.হেলাল উদ্দিন। র‌্যাব-২এর এই অভিযান চলে ১১ জানুয়ারী ২০১৬ দুপুর ১২ থেকে দুপুর ২ টা পর্যন্ত।র‌্যাব- সুত্রে জানা যায়, র‌্যাব-২এর গোয়েন্দা নজরদারীতে বনানীর এই কারখানার সন্ধান পাওয়া যায়। র‌্যাব-২ এর উপ-পরচিালক মোঃ দিদারুল আলম এবং অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোঃ মিজানুর রহমান মুন্সি এর নেতৃত্বে একটি চৌকষ দল অভিযান চালিয়ে কারখানার মালিক মো.মাইন উদ্দিন এবং সহকারী ম্যানেজার মো.শোয়েব আহম্মেদ কে আটক করে। অভিযানে দেখা যায়, (ড্রীম ত্রিফলা চূর্ন, নিম ন্যাচারাল টুথপেষ্ট, ব্লাক হেয়ার শাম্পু, এ্যালোভেরা ন্যাচারাল শাম্পু, ড্রীম নাইজেলা ক্যাপ, ড্রীম গ্লুকো কন্ট্রোল, ড্রীম সয়া প্রোটিন, ডি-পাওয়ার এক্স, এ্যালোভারা ন্যাচারাল লাক্সারী, এ্যালোভারা জেল ফেসিয়াল, আর্থোকিল, আর্থোমিট, ডায়াকিউর, স্কীন কেয়ার সহ বিভিন্ন ধরনের ১ লক্ষ ১০ হাজার পিস ট্যাবলেট ও ক্যাপসুল এবং ৫ হাজার বোতল সিরাপ জব্দ করে যার আনুমানিক মূল্য ২০ লক্ষ টাকা। ড্রীম টুগেদার লিমিলেডের এর মালিক মাইন উদ্দিন জানান, বেশ কয়েক বছর আগে প্রতিষ্ঠিত অত্র প্রতিষ্ঠানের ঔষধ প্রশাসন অধিদপ্তরের কোন লাইসেন্স নেই। এবং ঔষধ প্রশাসন অধিদপ্তর ও বিএসটিআই এর অনুমোদন ব্যতিরেকে মাল্টিলেভেল মার্কেটিং কোম্পানীর মত হকারের মাধ্যমে রাস্তায় রাস্তায় ঔষধ বিক্রয় করে আসছে যা সম্পুর্ণ নিষিদ্ধ। অনুমোদন ছাড়াই বিএসটিআই এর মানচিত্র ব্যবহার করা এছাড়াও আমদানীকৃত ঔষধের কোন নিবন্ধন (উঅজ) নেই। এসব মানহীন ও ভেজাল ঔষধ মানব দেহে বিভিন্ন জটিল রোগ যেমন আলসার, গ্যাসট্রিক, বহুমুত্র, যৌন দূর্বলতাসহ বিভিন্ন রোগের পথ্য হিসেবে সরবরাহ করে আসছিল। এ সকল ঔষধের ব্যাপারেজিজ্ঞাসাবাদ করা হলে প্রতিষ্ঠানের মালিক কোনো সদ্দুত্তর দিতে পারেন নাই এবং ঔষধ প্রশাসন অধিদপ্তরের লাইসেন্স দেখাতে ব্যর্থ হন। অন্যদিকে বিভিন্ন স্বনামধন্য কোম্পানীর ৪০ (চল্লিশ) ধরনের ঔষধ অবৈধভাবে উৎপাদন ও বাজারজাতকরন, ডায়াগনষ্টিক ল্যাবে উৎপাদনের তারিখ বিহীন ও মেয়াদউত্তীর্ণ রিএজেন্ট থাকা, ল্যাবে রিএজেন্ট নির্দিষ্ট তাপমাত্রায় সংরক্ষণ না করা,ল্যাবটেকনিশিয়ান না থাকাসহ নোংরা ও অস্বাস্থ্যকর পরিবেশে ল্যাব পরিচালনা করে আসছে। এ সব অপরাধ স্বিকার করলে সাথে থাকা ভ্রাম্যমান আদালত ড্রীম টুগেদার লিঃ এর মালিককে ১৯৪০ সনের ড্রাগ এ্যাক্টের ১৮(সি) ও বিএসটিআই অধ্যাদেশ, ১৯৮৫ এর ২৪/১৯ ধারা মোতাবেক ৫লক্ষ টাকা জরিমানা, অনাদায়ে ৩ মাসের কারাদন্ড; সহকারী ম্যানেজার মোঃ শোয়েব আহম্মেদ (৩৩) কে ১৯৪০ সনের ড্রাগ এ্যাক্টের ১৮(সি) ধারা মোতাবেক ১ লক্ষ টাকা জরিমানা, অনাদায়ে ১ মাসের কারাদন্ড প্রদান করেন। ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা করেন র‌্যাবের নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট জনাব মো.হেলাল উদ্দিন।

পাঠকের মতামত...

Print Friendly, PDF & Email
Total Page Visits: 145 - Today Page Visits: 1

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*