Home » রাজনীতি » এরশাদ-রওশনের সঙ্গে কার্যত নেই কোনো বিরোধ

এরশাদ-রওশনের সঙ্গে কার্যত নেই কোনো বিরোধ

জাতীয় পার্টিতে (জাপা) এরশাদ-রওশনের সঙ্গে কার্যত কোনো বিরোধ নেই। দুই জনের কেউই কাউকে চটাতে চান না। যার ফলে গত বৃহস্পতিবার সকালে গুলশান-১ এর ইমানুয়েলস কনভেনশন সেন্টারে নবনিযুক্ত কো-চেয়ারম্যান জি এম কাদের ও মহাসচিব রুহুল আমিন হাওলাদারের সংবর্ধনা সভায় মঞ্চে বসা এরশাদকে স্ত্রী রওশন ফোন দিয়েছিলেন। রওশন ফোনে জানতে চেয়েছেন, তুমি এখন কোথায়? জবাবে এরশাদ জানিয়েছেন, তিনি গুলশানে দলের একটি সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে আছেন। শুনে রওশন বলেছেন, তুমি আমাকে নিলে না কেন?
দলের নির্ভরযোগ্য সূত্র জানায়, এরশাদ ও রওশন দুইজনই সরকারের সঙ্গে সম্পর্ক রেখেই জাপাকে আলোচনায় জিইয়ে রাখতে চায়। দলের সাংসদদের পদত্যাগ ও মন্ত্রিদের মন্ত্রিসভা ছাড়ার ব্যাপারে দলের নেতাকর্মীদের কাছ চাপ থাকা স্বর্থেও তারা এ বিষযটি এড়িয়ে যান বলে একাধিক সূত্র থেকে জানা গেছে।
সর্বশেষ কো-চেয়ারম্যান নিয়োগ এবং মহাসচিব বদল নিয়ে দলের ভেতর সৃষ্ট অস্থিরতাও শেষমেশ সরকারে থাকা না-থাকার আলোচনায় গিয়ে ঠেকেছে। যদিও এরশাদ নিজে প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ দূত পদে বহাল আছেন। বলছেন, বিশেষ দূত বানিয়ে প্রধানমন্ত্রী তাকে সম্মান দিয়েছেন, তাই প্রধানমন্ত্রীর সম্মতি ছাড়া তিনি এ পদ ছাড়বেন না।
সূত্র জানায়, সরকারের সঙ্গে সুসম্পর্ক বজায় রাখাসহ দলের কিছু নীতিগত বিষয়ে এরশাদ ও রওশনের মধ্যে সমঝোতা হয়েছে। এরশাদ ও রওশনপন্থিদের জাপার বর্তমান পরিস্থিতিকে সরকারও ইতিবাচক হিসেবে দেখছে। কারণ, গত কিছুদিন জাপা যেভাবে গণমাধ্যমে আলোচিত হচ্ছে, তাতে বিএনপি আলোচনা থেকে অনেকটা দূরে সরে গেছে।
জাপার দায়িত্বশীল একটি সূত্র জানায়, সংসদে বিরোধী দলের নেতা রওশনের সঙ্গে কথা বলেই এরশাদ গত ১৭ জানুয়ারি জি এম কাদেরকে দলের কো-চেয়ারম্যান এবং নিজের রাজনৈতিক উত্তরাধিকারী ঘোষণা করেন। আর মহাসচিব পদ থেকে জিয়াউদ্দিন আহমেদ বাবলুকে তাৎক্ষণিক সিদ্ধান্তের মাধ্যমে সরিয়ে দেন বলে জানা গেছে।
জাপার নির্ভরযোগ্য সূত্রমতে, ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারির নির্বাচনের পর থেকেই রওশনপন্থি হিসেবে পরিচিত প্রভাবশালী কয়েকজন নেতা দলে প্রভাবমুক্ত করতে চেয়েচিলেন এরশাদকে । এ কারণে তারা রওশনকে সামনে রেখে দলে নিজেদের কর্তৃত্ব প্রতিষ্ঠা করেন। জাপার চেয়ারম্যান এরশাদ বিষয়টি বুঝতে পেরে মহাসচিব পদ বদল করার সিদ্ধান্ত নেন।
জাপার প্রেসিডিয়াম সদস্য কাজী ফিরোজ রশীদকে এরশাদ ও রওশনের সঙ্গে বর্তমানে সম্পর্ক কেমন প্রশ্ন করলে তিনি বলেন, এ বিষয়টি স্যার (এরশাদ) ভাল বলতে পারবেন। তবে তারা দীর্ঘ প্রায় পাঁচ যুগ ধরে সংসার করছেন। নানা ঘাত-প্রতিঘাতেও তাদের সংসার ভাঙেনি।
জাপায় সাম্প্রতিক বিরোধ সম্পর্কে জানতে চাইলে দলের কো-চেয়ারম্যান জি এম কাদের বলেন, কো-চেয়ারম্যান এবং মহাসচিব নিয়োগ নিয়ে দলের চেয়ারম্যান ও জাতীয় সংসদের বিরোধীদলের নেতা দ্বিমত পোষণ করেননি। কিছু লোক পানি ঘোলা করার চেষ্টা করছে। সম্প্রতি জি এম কাদের দলের এক সংবাদ সম্মেলনে বলেন, প্রেসিডিয়াম সদস্যরা মত দিয়েছেন যে, জাপার সাংসদদের মন্ত্রিসভা থেকে বেরিয়ে আসা উচিত। তবে, এ বিষয়ে দলের চেয়ারম্যান সময়মতো পদক্ষেপ নেবেন।

জাতীয় পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য এস এম ফয়সার চিশতী বলেন, জাতীয় সংসদের বিরোধীদলের নেতা বেগম রওশন এরশাদ কখনও জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এশাদের সঙ্গে এমন ধরনের কোনো আচরণ করেননি, যাতে স্যার মনে কষ্ট পাবেন। তারা দুই নেতা সমঝোতা করে দল চালাচ্ছেন।

পাঠকের মতামত...

Print Friendly, PDF & Email
Total Page Visits: 58 - Today Page Visits: 1

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*