Home » রংপুর » গাইবান্ধা » এমপি হত্যার পর নিখোঁজ আ.লীগ-বিএনপির দুই নেতা উদ্ধার

এমপি হত্যার পর নিখোঁজ আ.লীগ-বিএনপির দুই নেতা উদ্ধার

গাইবান্ধা প্রতিনিধি: গাইবান্ধা-১ আসনের সংসদ সদস্য লিটন হত্যাকাণ্ডের পর গাইবান্ধার সাদুল্লাপুর থেকে নিখোঁজ হওয়ার ১১ দিন পর দিনাজপুরের পার্বতীপুর থেকে উদ্ধার হলেন নলডাঙ্গা ইউনিয়নের আ.লীগ-বিএনপির দুই নেতা উদ্ধার।

শুক্রবার গভীর রাতে তাদের দুজনকে দিনাজপুর জেলার পারবর্তীপুর উপজেলার খোলাহাটি এলাকায় রেখে যায় কয়েকজন। পরে তারা বিষয়টি পরিবারকে জানালে মাইক্রোবাসে করে তাদের বাড়ি নিয়ে আসেন পরিবারের সদস্যরা।

শনিবার (২১ জানুয়ারি) সকাল সাড়ে ৯ টার দিকে নলডাঙ্গা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ও নলডাঙ্গা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মো. তরিকুল ইসলাম নয়ন তাদের দুই জনের বাড়ি ফেরার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

তরিকুল ইসলাম নয়ন জানান, শুক্রবার রাত ১টার দিকে তার ভাই প্রিন্স মোবাইলে ফোন দিয়ে জানান, তাদের দুই জনকে দিনাজপুর জেলার পারবর্তীপুর উপজেলার খোলাহাটি এলাকায় রেখে গেছেন কয়েকজন। পরে মাইক্রোবাস নিয়ে গিয়ে তাদের বাড়িতে নিয়ে আসা হয়।

মাইদুল ইসলাম প্রিন্স নলডাঙ্গা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক ও শফিউল ইসলাম শাপলা নলডাঙ্গা ইউনিয়ন যুবদলের সহ-সাধারণ সম্পাদক। গত ১০ জানুয়ারি সকাল সাড়ে ১১টার দিকে নলডাঙ্গা রেল গেট থেকে প্রিন্সকে ও কাচারি বাজার এলাকা থেকে শাপলাকে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যর পরিচয়ে দিয়ে মোটরসাইকেলে করে তুলে নিয়ে যাওয়া হয়। এ ঘটনায় তাদের পরিবারের পক্ষ থেকে সাদুল্যাপুর থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করা হয়।

উদ্ধার হওয়া প্রিন্স বলেন, ‘শুক্রবার রাতে তাদের দুজনকে খোলাহাটি এলাকায় রেখে যায় কয়েকজন। এরপর তারা বিষয়টি তাদের পরিবারকে জানান। তবে কারা তাদের ধরে নিয়ে গেছেন এবং ১১ দিন তারা কোথায় ছিলেন তা জানতে পারেননি। এমনকি যারা তাদের আটক করে রেখেছিলেন তাদেরকেও চিনতে পারেননি।’

শাপলা বলেন, ‘নিখোঁজ হওয়ার পর থেকে তাকে একটি ছোট ঘরে আটকিয়ে রাখা হয়েছিল। সেখানে খাবার দেওয়া হতো। তবে কোথায় কীভাবে আছেন তা জানতে পারেননি। তাদের কাউকেও চিনতেও পারেননি।’

সাদুল্যাপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ফরহাদ ইমরুল কায়েস জানান, চার নেতা নিখোঁজ হওয়ার ঘটনায় সাদুল্যাপুর থানায় সাধারণ ডায়েরি হয়। এরপর বিভন্নভাবে তাদের উদ্ধারে তৎপর ছিলো পুলিশ। অবশেষে দুজন অক্ষত অবস্থায় বাড়ি ফিরেছেন। এর আগেও নিখোঁজ যুবলীগ নেতা জিম মণ্ডল ও ছাত্রলীগ নেতা সাদেক অক্ষত অবস্থায় বাড়ি ফিরেছেন।

প্রসঙ্গত, এমপি লিটন হত্যাকাণ্ডের পর চার নেতা নিখোঁজ হওয়ার ঘটনায় সাদুল্যাপুর থানায় সাধারণ ডায়েরি হয়। অবশেষে চারজনই অক্ষত অবস্থায় বাড়ি ফিরেছেন। এর আগে নিখোঁজ যুবলীগ নেতা জীম মণ্ডল ও ছাত্রলীগ নেতা সাদেক একই প্রক্রিয়ায় অক্ষত অবস্থায় বাড়ি ফিরেন।

গত ৯ জানুয়ারি রাত ১১টার দিকে মোটরসাইকেলে করে সাদুল্যাপুর থেকে লালবাজার হয়ে নলডাঙ্গা ইউপি চেয়ারম্যান তরিকুল ইসলাম নয়নের কাছে যাওয়ার পথে জিম ও সাদেককে সাদা পোশাকে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্য পরিচয়ে কয়েকজন তুলে নিয়ে যায়। নিখোঁজ হওয়ার ১০ দিন পর জীম ও সাদেক বাড়ি ফিরে আসেন।

আর ১০ জানুয়ারি সকাল সাড়ে ১১টার দিকে নলডাঙ্গা থেকে প্রিন্স ও শাপলাকে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যর পরিচয়ে তুলে নিয়ে যাওয়া হয়। অবশেষে ১১ দিন নিখোঁজ থাকার পর তারাও ফিরলেন। এতে পরিবার ও এলাকাবাসী খুবই খুশি।

পাঠকের মতামত...

Print Friendly, PDF & Email
Total Page Visits: 65 - Today Page Visits: 1

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*