Home » অপরাধ » বেতাগীতে ইউপি চেয়ারম্যানকে কুপিয়ে জখমের ঘটনায় আটক ২

বেতাগীতে ইউপি চেয়ারম্যানকে কুপিয়ে জখমের ঘটনায় আটক ২

বাংলার কন্ঠস্বর // বরগুনার বেতাগীতে পূর্ব শত্রুতার জের ধরে সড়িষামুড়ি ইউপি চেয়ারম্যান ও জেলা যুবলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ইমাম হাসান শিপন জোমাদ্দারকে কুপিয়ে জখমের ঘটনায় জড়িত সন্দেহে দুইজনকে আটক করেছে বেতাগী থানা পুলিশ। বেতাগী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) কাজী শাখাওয়াত হোসেন তপু এই তথ্য নিশ্চিত করেছেন।
থানা সূত্রে জানা যায় গত শনিবার (২১ নভেম্বর) সরিষামুড়ী ইউনিয়নে অভিযান চালিয়ে ঘটনার সাথে জড়িত সন্দেহে রফিকুল ইসলাম (৩৫) এবং মো. আবু তালেবকে (৩৫) আটক করে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য থানায় নিয়ে আসা হয়। 

বেতাগী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) কাজী শাখাওয়াত হোসেন তপু বলেন, ইউপি চেয়ারম্যানের ওপর হামলার ঘটনায় জড়িত সন্দেহে দুজনকে আটক করা হয়েছে। সন্দেহভাজনদের ধরতে আমরা অভিযান অব্যহত রেখেছি। চেয়ারম্যানের চিকিৎসার জন্য তার স্বজনরা ব্যস্ত থাকার এখনও মামলা রুজু হয়নি। তবে মামলা দায়েরের প্রক্রিয়া চলমান রয়েছে।
এদিকে যুবলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ইমাম হাসান শিপন জোমাদ্দারকে কুপিয়ে জখমের প্রতিবাদে ও ঘটনায় জড়িতদের দ্রুত আইনের আওতায় এনে বিচারের দাবিতে বিক্ষোভ সমাবেশ ও মানব্বন্ধন অনুষ্ঠিত হয়েছে।

রবিবার (২২ নভেম্বর) সকাল এগারোটায় বেতাগী উপজেলা আ.লীগ, যুবলীগ এবং ছাত্রলীগের ব্যানারে উপজেলা পরিষদের সামনে বিক্ষোভ সমাবেশ ও মানব্বন্ধন বক্তব্য রাখেন উপজেলা আ.লীগের সভাপতি ও পৌর মেয়র এবিএম গোলাম কবির, উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান আমিরুল ইসলাম পিন্টু, হোসনাবাদ ইউপি চেয়ারম্যান খলিলুর রহমান খান, পৌর আ.লীগের সভাপতি বাবুল আক্তার, যুবলীগের সভাপতি প্রভাষক জহিরুল ইসলাম লিটন, ছাত্রলীগের সভাপতি বিএম আদনান খালিদ মিথুন প্রমুখ। এসময় বক্তারা আসামীদের গ্রেফতার না করা পর্যন্ত আন্দোলন চালিয়ে যাবেন বলেন জানান।
গত শুক্রবার বিকেল সাড়ে তিনটার দিকে বরগুনার বেতাগী উপজেলার সরিষামুড়ী ইউনিয়নের কালিকাবাড়ি বাজারে একটি বিড়ের দাওয়াত খেয়ে মোটরসাইকেলযোগে আসার পথে এ ঘটনাটি ঘটায় দুর্বৃত্তরা। পরে আহতাবস্থায় তাকে উদ্ধার করে বরগুনা জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করেন প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে বরিশাল শেরেবাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল স্থানান্তর করা হয়। সেখান থেকেও উন্নত চিকিৎসা করার জন্য ঢাকা পঙ্গু হাসপাতাল নেওয়া হয়েছে।

সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান ইউসুফ ও তার ছেলেরা পুর্ব শত্রুতার জেরে এ ঘটনা ঘটিয়েছে বলে শিপনের স্বজনদের দাবি।এ ঘটনায় এখন পর্যন্ত মামলা না হলেও ঘটনায় জড়িত সন্দেহে দুইজনকে আটক করেছে পুলিশ।

বেতাগী থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) কাজী শাখাওয়াত হোসেন তপু বলেন, ইউপি চেয়ারম্যানের ওপর হামলার ঘটনায় জড়িত সন্দেহে দুজনকে আটক করা হয়েছে। সন্দেহভাজনদের ধরতে আমরা অভিযান অব্যহত রেখেছি। চেয়ারম্যানের চিকিৎসার জন্য তার স্বজনরা ব্যস্ত থাকার এখনও মামলা রুজু হয়নি। তবে মামলা দায়েরের প্রক্রিয়া চলমান রয়েছে।

পাঠকের মতামত...

Print Friendly, PDF & Email
Total Page Visits: 72 - Today Page Visits: 1

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*