Home » শিক্ষা » টাকার অভাবে মেডিকেলে ভর্তি হতে পারছেন না গোবিন্দ

টাকার অভাবে মেডিকেলে ভর্তি হতে পারছেন না গোবিন্দ

বাংলার কন্ঠস্বর // গোবিন্দ চন্দ্র। এই মেধাবী ছাত্রের বাড়ি গাইবান্ধার সাদুল্লাপুরের ইদিলপুর ইউনিয়নের রুপনাথপুর গ্রামে। এ বছর সাতক্ষীরা মেডিকেল কলেজে ভর্তির সুযোগ পেয়েছেন। কিন্তু অর্থ সংকটে সেই আশা পূরণ হচ্ছে না।

গোবিন্দের বাবা জেলে শ্রী কমল চন্দ্র বলেন, ‘ছেলে মেডিকেল ভর্তি সুযোগ পেয়েছে ঠিকই। গরিবের জন্য সব সময় সব সুযোগ কাজে লাগে না। ছেলেকে মেডিকেল কলেজে ভর্তি করার সামর্থ্য আমার নেই। একদিন মাছ বিক্রি না করলে পেটে ভাত যায় না, এত টাকা আমি কোথায় পাবো।’

আর্থিক সহায়তা পেলে মেডিকেলে ভর্তি হতে পারবেন গোবিন্দ চন্দ্র। তার পরিবারের চাওয়া, সমাজের দানশীল ও বিত্তবান শ্রেণির মানুষ যদি সহযোগিতা করতেন, তাহলে হয়তো ছেলের স্বপ্নপূরণ হবে। তার পরিবারের পক্ষে ব্যয়ভার বহন করা কষ্ট সাধ্য।

দরিদ্রদের কষাঘাতে জর্জরিত জেলে কমল চন্দ্রের জীর্ণ কুটিরে জন্ম নেওয়া গোবিন্দ চন্দ্র এলাকায় অত্যন্ত মেধাবী ছাত্র হিসাবেই পরিচিত। তিনি মাদারহাট উচ্চ বিদ্যালয় থেকে এসএসসি ও পলাশবাড়ী সরকারি কলেজ থেকে এইচএসসি’তে জিপিএ-৫ পেয়ে পেয়েছেন। তিনি নিজে টিউশনি করে, কখনো অন্যের জমিতে কাজ করে এ পর্যন্ত লেখাপড়া করে এসেছেন।

চলতি বছর বাবা মাকে না জানিয়ে মেডিকেল কলেজে ভর্তির জন্য আবেদন করেন গোবিন্দ। তাকে সাতক্ষীরা মেডিকেল কলেজে ভর্তির জন্য সুপারিশ করা হয়। ভর্তির আর মাত্র কয়েক দিন বাকি থাকলেও ভর্তি ও আনুষঙ্গিক খরচের টাকা সংগ্রহ করতে পারেনি তার পরিবার।

কমল চন্দ্রের তিন ছেলেমেয়ের মধ্যে রড় সন্তান গোবিন্দ চন্দ্র। সামান্য পুঁজিতে পলাশবাড়ী থেকে মাছ ক্রয় করে গ্রামের ছোট্ট বাজারে নিয়ে বিক্রি করে কোনো রকমে সংসার চলে তার। এরপর তিন সন্তানের লেখাপড়ার খরচ বহন করা তার পক্ষে অনেকটা কষ্ট সাধ্য হয়ে পড়েছে।

তাই কমল চন্দ্র অনেকটা অভিমান করে বলেন, ‘আমরা ছেলেকে মেডিকেল কলেজ কীভাবে পড়াব, এত খরচ কোথায় পাবো। ছিড়ে কাঁথায় শুয়ে লাখ টাকার স্বপ্ন।’ মেডিকেল কলেজে ছেলেকে পড়ানোর ইচ্ছা থাকলেও তা তার সাধ্যের বাইরে।

পাঠকের মতামত...

Print Friendly, PDF & Email
Total Page Visits: 31 - Today Page Visits: 1

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*