ঢাকামঙ্গলবার , ২ আগস্ট ২০২২
  1. অন্যান্য
  2. অর্থনীতি
  3. আন্তর্জাতিক
  4. খেলা
  5. জাতীয়
  6. প্রচ্ছদ
  7. ফিচার
  8. বিনোদন
  9. রাজনীতি
  10. সর্বশেষ
  11. সারাদেশ
  12. স্বাস্থ্য

জাতীয় চাঁদ দেখা কমিটির কেউ চাঁদ দেখেন না

admin
আগস্ট ২, ২০২২ ১০:৪৯ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

নামে ‘জাতীয় চাঁদ দেখা কমিটি’ হলেও এই কমিটির কেউ চাঁদ দেখেন না। দেশের আকাশে যখন চাঁদ ওঠার কথা তখন কমিটির অধিকাংশ সদস্য ব্যস্ত থাকেন ব্যক্তিগত কাজে। মাসে একদিন ইসলামিক ফাউন্ডেশনে কমিটির বৈঠকে তারা নিজেদের প্রতিনিধি পাঠান। সেসব প্রতিনিধিরা ইসলামিক ফাউন্ডেশনে উপস্থিত হয়ে বসে থাকেন চার দেয়ালের ভেতরে। অপেক্ষা করেন দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে ফোন আসার। ফোনে সংবাদ আসলেই তারা ঘোষণা দেন ‘চাঁদ ওঠার’।

বর্তমানে এভাবেই চলছে বাংলাদেশের জাতীয় চাঁদ দেখা কমিটির কার্যক্রম। ইসলামিক ফাউন্ডেশনের দ্বিনি দাওয়াত ও সংস্কৃতি বিভাগ দ্বারা পরিচালিত হয় এই কমিটি। এতে ১৭ জন সদস্য রয়েছেন।

আরবি ক্যালেন্ডারের প্রতিমাসে একবার ২৯ তারিখ জাতীয় চাঁদ দেখা কমিটির বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। বৈঠকে জাতীয় চাঁদ দেখা কমিটির মোট ১৭ জন সদস্য অংশ নেওয়ার কথা রয়েছে। তবে ঢাকা পোস্টের কাছে আসা তথ্য অনুযায়ী গত এক বছরে কোনো বৈঠকেই কমিটির ১৭ সদস্য উপস্থিত ছিলেন না। এমনকি পবিত্র ঈদুল ফিতর নির্ধারণের শাওয়াল মাসের চাঁদ দেখার সময়ও উপস্থিত ছিলেন না অনেকে।

বৈঠকে অনুপস্থিত থাকা অভ্যাসে দাঁড়িয়েছে
জাতীয় চাঁদ দেখা কমিটির ১৭ সদস্যের কমিটির সভাপতি ধর্ম প্রতিমন্ত্রী ফরিদুল হক খান। কমিটির অন্য সদস্যরা হলেন ধর্ম মন্ত্রণালয়ের সচিব, তথ্যসচিব, প্রধান তথ্য কর্মকর্তা, মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের যুগ্ম সচিব, বাংলাদেশ ওয়াকফ প্রশাসনের ওয়াকফ প্রশাসক, ধর্ম মন্ত্রণালয়ের যুগ্ম সচিব, বাংলাদেশ টেলিভিশনের মহাপরিচালক, বাংলাদেশ আবহাওয়া অধিদপ্তরের পরিচালক, বাংলাদেশ মহাকাশ গবেষণা ও দূর অনুধাবন প্রতিষ্ঠানের চেয়ারম্যান, ঢাকার জেলা প্রশাসক, সরকারি মাদ্রাসা-ই-আলিয়ার অধ্যক্ষ, বায়তুল মুকাররম জাতীয় মসজিদের খতিব, লালবাগ শাহী জামে মসজিদের খতিব, চকবাজার শাহী জামে মসজিদের খতিব, ইসলামিক ফাউন্ডেশনের মহাপরিচালক।

চাঁদ দেখা নিয়ে নবীজি (সা.) যা বলেছেন

চাঁদ দেখার কমিটির বৈঠকে উপস্থিত হওয়ার জন্য প্রত্যেকে ২০০০ টাকা করে ভাতা পান। তবুও ঈদুল ফিতর, ঈদুল আজহার মতো গুরুত্বপূর্ণ বৈঠকে অধিকাংশ সদস্য উপস্থিত থাকেন না। পাঠান তাদের প্রতিনিধিদের, যাদের ইসলামিক ফাউন্ডেশনে বসে থাকা ছাড়া আর কোন কাজ থাকে না।

ইসলামিক ফাউন্ডেশনের নথি থেকে জানা গেছে, পহেলা মে অনুষ্ঠিত বছরের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ঈদুল ফিতরের দিন নির্ধারণের বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন না কমিটির অধিকাংশ সদস্য। তাদের পক্ষ থেকে অন্য ব্যক্তিরা এসে প্রতিনিধিত্ব করেছেন। কেন আসেননি সে বিষয়েও কিছু জানাননি ইসলামিক ফাউন্ডেশনকে। একই অবস্থা পবিত্র জিলহজ মাসের দিন নির্ধারণের বৈঠকেরও। সেই বৈঠকেও অধিকাংশ সদস্য তাদের পক্ষে প্রতিনিধি পাঠিয়েছেন।

ইসলামিক ফাউন্ডেশনের নথি অনুযায়ী এ বছরের পবিত্র ঈদুল ফিতরের দিন (শাওয়াল মাস) নির্ধারণের বৈঠকে তথ্য মন্ত্রণালয়ের সচিবের জায়গায় উপস্থিত ছিলেন অতিরিক্ত সচিব মীর মো. নজরুল ইসলাম, প্রধান তথ্য কর্মকর্তার পক্ষে উপস্থিত ছিলেন সিনিয়র উপ-প্রধান তথ্য অফিসার জসীম উদ্দিন, বাংলাদেশ টেলিভিশনের মহাপরিচালকের জায়গায় উপস্থিত ছিলেন প্রতিষ্ঠানটির পরিচালক (প্রশাসন ও অর্থ) মো. জহিরুল ইসলাম মিয়া।

এছাড়া বাংলাদেশের আবহাওয়া অধিদপ্তরের পরিচালকের উপস্থিত থাকার কথা থাকলেও উপস্থিত ছিলেন উপ-পরিচালক আব্দুর রহমান, বাংলাদেশ মহাকাশ গবেষণা ও দূর অনুধাবন প্রতিষ্ঠানের চেয়ারম্যানের পক্ষে ছিলেন মুখ্য বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা শাহ মো. মিজানুর রহমান, সরকারি মাদ্রাসা-ই-আলিয়া’র অধ্যক্ষের বদলে উপস্থিত ছিলেন উপাধ্যক্ষ মুহাম্মাদ আবদুর রশীদ।

বায়তুল মুকাররম জাতীয় মসজিদের খতিবও উপস্থিত ছিলেন না চাঁদ দেখা সংক্রান্ত বছরের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ওই বৈঠকে।

জাতীয় চাঁদ দেখা কমিটির এক সদস্য ঢাকা পোস্টকে বলেন, কমিটিতে ধর্ম মন্ত্রণালয়, আবহাওয়া অধিদপ্তর, বায়তুল মোকাররমের খতিব এবং মহাকাশ গবেষণা ও দূর অনুধাবন প্রতিষ্ঠানের (স্পারসো) প্রতিনিধি ছাড়া অন্যদের তেমন কোনো কাজ থাকে না। অন্যরা নিয়মিত আসেনও না। তাদের পক্ষে যারা আসেন, তারা বসে বসে সময় কাটান। ধর্মমন্ত্রী অথবা ধর্ম মন্ত্রণালয়ের সচিব চাঁদ দেখা-না দেখার ঘোষণা দেয়ার পর তারা চলে যান। অনেক সময় ঘোষণার আগেই তারা চলে যান। এটা প্রায় অভ্যাস হয়ে গেছে। দীর্ঘ অনেক বছর ধরেই এই চর্চা চলছে।

জাতীয় চাঁদ দেখা কমিটির যাবতীয় কার্যক্রম পরিচালনা করে ইসলামিক ফাউন্ডেশন। সংস্থাটির দ্বিনি দাওয়াত ও সংস্কৃতি বিভাগের পরিচালক আনিছুর রহমান সরকার সমন্বয়ের দায়িত্ব পালন করেন।

তিনি ঢাকা পোস্টকে বলেন, ‘ইসলামিক ফাউন্ডেশনের এই বিভাগ আরবি মাসের ২৯ তারিখের আগে জাতীয় চাঁদ দেখা কমিটির সদস্যদের চিঠি দেয়। অনেক সদস্য বৈঠকে আসেন, অনেকে আসেন না। ফাউন্ডেশনের দায়িত্ব হলো তাদের ডেকে বৈঠক আয়োজন করা।’

 

বৈঠকে কী করেন কমিটির সদস্যরা
জাতীয় চাঁদ দেখা কমিটির একজন সদস্যের কাছ থেকে জানা গেছে তাদের কার্যক্রম। যথারীতি ধর্মমন্ত্রী থাকলে সভার শুরু করেন তিনি। তার অনুপস্থিতিতে সভাপতিত্ব করেন ধর্ম মন্ত্রণালয়ের সচিব। এই দুজনের একজন প্রথমে মহাকাশ গবেষণা ও দূর অনুধাবন প্রতিষ্ঠানের (স্পারসো) প্রতিনিধির কাছে চাঁদের সম্ভাব্য বয়স সম্পর্কে জানতে চান। এরপর বাংলাদেশ আবহাওয়া অধিদপ্তরের কাছ থেকে দেশের আবহাওয়া পরিস্থিতি, কোথায় মেঘ আছে, কোথায় মেঘ নেই, কোন জেলার আকাশ পরিষ্কার ইত্যাদি জানতে চান। এরপর তারা বসে থাকেন জেলা চাঁদ দেখা কমিটির ফোনের অপেক্ষায়। ফোন আসার আগ পর্যন্ত মূলত কোনো কাজ থাকে না এই কমিটির।

জেলা কমিটির অবস্থা কী?
চাঁদ দেখার জন্য দেশের প্রতিটি জেলায় জেলা প্রশাসকের সভাপতিত্বে ৭ সদস্য বিশিষ্ট উপ-কমিটি করে দেওয়া হয়েছে। সেই কমিটিতে রয়েছেন ইসলামিক ফাউন্ডেশনের সংশ্লিষ্ট জেলার উপ-পরিচালক, জেলার প্রধান আলিয়া মাদ্রাসার অধ্যক্ষ, জেলার প্রধান জামে মসজিদের খতিব, জেলার প্রখ্যাত কওমী মাদ্রাসার মুহতামিম, জেলা তথ্য অফিসার এবং জেলা আবহাওয়া কর্মকর্তা।

চাঁদ দেখা কমিটির বৈঠক সন্ধ্যায়

ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার তথ্য কর্মকর্তা ও চাঁদ দেখা কমিটির অন্যতম সদস্য মো. কাউসার ঢাকা পোস্টকে বলেন, ‘আমরা আরবি মাসের ২৯ তারিখ সন্ধ্যায় মাগরিবের নামাজের ৩০ মিনিট আগে বৈঠক করি। সেখানে আবহাওয়া অধিদপ্তরের লোকজনের সাথে আলোচনা করি। মাগরিবের নামাজের পর চাঁদ দেখার কাজ করি। চাঁদ দেখতে পারলে কমিটির সভাপতি (জেলা প্রশাসক) সেই তথ্য ঢাকায় জাতীয় চাঁদ দেখা কমিটিকে জানান। এটাই এখানকার চাঁদ দেখার প্রক্রিয়া’

জাতীয় চাঁদ দেখা কমিটি যে ৬৪ জেলার ৬৪ কমিটির উপর চাঁদ দেখার জন্য নির্ভর করে আছে সেসব কমিটির অনেকে জানেন না কোন কোন দিন চাঁদ দেখতে হয়। এছাড়া প্রায়ই চাঁদ দেখার সম্ভাব্য দিনে ফোন দিয়েও খোঁজ মেলে না তাদের।

ইসলামিক ফাউন্ডেশনের একজন দায়িত্বপ্রাপ্ত ব্যক্তি ঢাকা পোস্টকে বলেন, গত রবিউল আউয়াল মাসের চাঁদ দেখার বৈঠকের দিন রংপুর বিভাগের একটি জেলা থেকে একজন চাঁদ দেখার কথা আমাদের জানান। বিষয়টি যাচাই করতে আমরা রংপুরের চাঁদ দেখা কমিটির এক সদস্যকে ফোন দিই। সেসময় তিনি বাসায় ব্যক্তিগত কাজে ব্যস্ত ছিলেন বলে জানান। পাশের একটি জেলার চাঁদ দেখা কমিটির একজনকে ফোন দেওয়া হলে ‘চাঁদ দেখার বিষয়টি তার মনে নেই’ বলে জানান।

এছাড়া চাঁদ দেখার জন্য ইসলামিক ফাউন্ডেশন প্রায় ৫০ লাখ টাকা দিয়ে একটি থিওডোলাইট মেশিন কিনেছে। ঢাকার পুরানা পল্টনের জাতীয় ক্রীড়া পরিষদের ১৮ তলার ভবন থেকে ওই মেশিন দিয়ে চাঁদ দেখার ব্যবস্থা করেছে ফাউন্ডেশন। তবে সেই মেশিনে এ পর্যন্ত প্রথম দিনের চাঁদ দেখা যায়নি।

আসলে কোন নিয়মে চাঁদ দেখে বাংলাদেশ?
ইসলামিক ফাউন্ডেশন থেকে জানা গেছে, বর্তমানে বিশ্বে দুটি পদ্ধতিতে চাঁদ দেখা হয়। একটি হচ্ছে বৈজ্ঞানিক হিসাবে চাঁদের বয়স ও অবস্থান নির্ণয় করে। এই প্রতিবেদনটি আবহাওয়া অধিদপ্তর এবং বাংলাদেশ মহাকাশ গবেষণা ও দূর অনুধাবন প্রতিষ্ঠান দেয়। অপরটি হচ্ছে খালি চোখে কিংবা মেশিন দিয়ে আকাশের দিকে তাকিয়ে। বাংলাদেশে এই দুটি পদ্ধতি চালু থাকলেও সিদ্ধান্ত দেওয়া হয় খালি চোখে চাঁদ দেখার উপরে।

ইসলামিক ফাউন্ডেশন থেকে সারা দেশের নাগরিকদের জন্য হটলাইন নম্বর দেওয়া আছে। যাতে তারা হটলাইন নম্বরে ফোন দিয়ে চাঁদ দেখেছে কি না তা জানাতে পারে।

এভাবে প্রতিটি চাঁদ দেখার বৈঠকে সাধারণ নাগরিকেরা দেশের বিভিন্ন জেলা থেকে চাঁদ দেখা কমিটির নম্বরে ফোন দিয়ে চাঁদ দেখার কথা জানায়। কেউ আবার চাঁদ দেখা গেছে বলে মিথ্যা তথ্য দেয়। তাদের দেয়া তথ্য সংশ্লিষ্ট জেলার চাঁদ দেখা কমিটির কাছে যাচাই-বাছাই করতে কল দেয় জাতীয় চাঁদ দেখা কমিটি। এভাবে চলতে থাকে চাঁদ দেখার কার্যক্রম। জেলা প্রশাসক এবং জেলা পর্যায়ের চাঁদ দেখা কমিটির ২ জন সদস্য ফোনে নিশ্চিত করলেই ঢাকা থেকে ‘চাঁদ উঠেছে’ বলে নিশ্চিত করা হয়।

আরও পড়ুন : সাজানো অভিযানে ভুয়া সাক্ষী, জড়িত ডিবির পুরস্কারপ্রাপ্ত কর্তারা!

ইসলামিক ফাউন্ডেশনের বিধান অনুযায়ী, জাতীয় ও জেলা পর্যায়ের চাঁদ দেখা কমিটির লোকজন চাঁদ দেখবেন এবং তা নিশ্চিত হয়ে ঘোষণা দেবেন। তবে যে কেউ চাঁদ দেখে দুজন সাক্ষী রেখে জাতীয় চাঁদ দেখা কমিটিকে ফোন দিতে পারেন। ফোন পেয়ে কমিটির সদস্যরা সংশ্লিষ্ট জেলার জেলা প্রশাসককে ফোন দিয়ে যাচাই-বাছাই করতে বলেন। এতে দীর্ঘ সময়  চলে যায়। মূলত চাঁদ দেখার স্বীকৃত কোনো পদ্ধতিই মানা হয় না বাংলাদেশে।

নতুন চাঁদ দেখে যে দোয়া পড়বেন

রাজধানীর শেখ জনূরুদ্দীন দারুল কুরআন মাদরাসার ইফতা বিভাগের প্রধান মুফতি সাদিকুর রহমান ঢাকা পোস্টকে বলেন, চাঁদ দেখা কমিটির বৈঠকের দিন যদি আকাশ পরিষ্কার থাকে, বেশ কয়েকজন লোক যদি চাঁদ দেখার প্রমাণ দেয়, কমিটি যদি তাদের সাক্ষ্যের সত্যতার বিষয়ে দৃঢ় প্রত্যয় জন্মে তবে চাঁদ দেখা প্রমাণিত হবে। আকাশ মেঘাচ্ছন্ন বা কুয়াশাচ্ছন্ন থাকলে রমজানের চাঁদ দেখার ব্যাপারে গ্রহণযোগ্য এক ব্যক্তির সাক্ষ্য গ্রহণযোগ্য। তবে শর্ত হলো, সাক্ষ্যদানকারী যেন সত্যবাদী, ধর্মভীরু ও প্রাপ্তব্যয়স্ক মুসলমান হয়। সে নারী হোক কিংবা পুরুষ হোক।

রাজধানীর গাউছনগর জামে মসজিদের ইমাম বিল্লাল হোসেন বলেন, বর্তমানে আলেমরা দুজন ব্যক্তির চাঁদ দেখার সিদ্ধান্তে একমত রয়েছেন। খালি চোখে বা বৈজ্ঞানিক প্রক্রিয়ায় চাঁদ দেখার তথ্য পাওয়ার পর দুজন ব্যক্তি নিজ চোখে দেখলে সে তথ্য গ্রহণ করা যাবে।

কীভাবে চাঁদ দেখে সৌদি আরব?
সৌদি আরবে প্রতি মাসের ২৯ তারিখে তাদের চাঁদ দেখা কমিটির লোকজন একত্রিত হন। তারা রিয়াদসহ বেশ কয়েকটি শহরে ছড়িয়ে ছিটিয়ে একটি মরুভূমি অঞ্চল বেছে নিয়ে টেলিস্কোপ নিয়ে চাঁদ দেখতে বসেন। চাঁদ দেখতে পেলে তা উচ্চ আদালতে জানানো হয়। উচ্চ আদালত থেকে চাঁদ দেখা যাওয়ার ঘোষণা দেওয়া হয়। কারো ওপর নির্ভর করে নয়, একমাত্র টেলিস্কোপ অথবা খালি চোখে কমিটির সদস্যরা চাঁদ দেখলেই কেবল তা আদালতে জানানো হয়।

এই সাইটে নিজম্ব নিউজ তৈরির পাশাপাশি বিভিন্ন নিউজ সাইট থেকে খবর সংগ্রহ করে সংশ্লিষ্ট সূত্রসহ প্রকাশ করে থাকি। তাই কোন খবর নিয়ে আপত্তি বা অভিযোগ থাকলে সংশ্লিষ্ট নিউজ সাইটের কর্তৃপক্ষের সাথে যোগাযোগ করার অনুরোধ রইলো।বিনা অনুমতিতে এই সাইটের সংবাদ, আলোকচিত্র অডিও ও ভিডিও ব্যবহার করা বেআইনি।